জেলা সংবাদ

যৌতুকের টাকা না দেয়ায় স্ত্রীকে পরিকল্পিতভাবে হত্যাচেষ্টা; স্বামী কারাগারে!

প্রকাশ: ১৮ নভেম্বর ২০১৯

মাজহারুল শিপলু, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি ■ বাংলাদেশ প্রেস

চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে ধাক্কা দিয়ে স্ত্রীকে হত্যার চেষ্টা করে তাতে ব্যর্থ হয় অভিযুক্ত স্বামী আবু তাহের আলী খান। ঘটনার ২ দিন পর স্ত্রী বাদী হয়ে ৩ জনের নামে থানায় মামলা দায়ের করেন। ঘটনাটি (১৪ নভেম্বর) বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার আনাইতারা ইউনিয়নের দেওড়া গ্রামে ঘটেছে।

অভিযুক্ত আসামী দেলদুয়ার উপজেলার মৃত রহমত আলী খানের ছেলে আবু তাহের আলী খান (২৯)। ঘটনার পর আহতাবস্থায় ওই গৃহবধূ মির্জাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন ছিলো বলে পরিবার সুত্রে জানা গেছে।

এজাহার ও পারিবারিক সুত্রে জানা যায়, ৫ বছর আগে টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলার ধানকী মহেড়া গ্রামের রহমত আলীর ছেলে আবু তাহের আলী খানের সাথে মির্জাপুর উপজেলার ভাতগ্রাম ইউনিয়নের মহদীনগর গ্রামের শামীম আহম্মেদের মেয়ের সাথে পারিবারিকভাবে বিবাহ হয়।

বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য ঐ গৃহবধূর উপর শারিরীক ও মানসিকভাবে নির্যাতন চালায় স্বামী, শ্বাশুড়ি ও ননাস। ৩ বছরের একটি ছেলে সন্তানের কথা চিন্তা করে সকলকিছু সহ্য করেও সংসার করে আসতে চেষ্টা করে ওই গৃহবধূ। কিন্তু ঘটনার ১ দিন আগে জোরপূর্বক তার স্বামী তার বড় বোনের বাসায় নিয়ে যায়। ঐ বাড়িতে গিয়েও মারধর করে স্বামী।

শ্বশুড় বাড়ি ফেরার পথে মির্জাপুর উপজেলার দেওড়া নামক স্থানে পৌছানোর পর সুযোগ বুঝে স্ত্রীকে গালি দিয়ে পেছনে ট্রাক দেখে হত্যার জন্য ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। ভাগ্যকারণে গাড়ির নিচে চাপা না পড়ে ওই গৃহবধূ রাস্তার মাঝখান থেকে গড়িয়ে জঙ্গলে গিয়ে পড়ে গুরুতর আহত হয়। এরপর ঘাতক স্বামী ঘটনাস্থল থেকে স্ত্রীকে রেখেই চলে যায়।

আহতাবস্থায় ওই গৃহবধূকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে মির্জাপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। কিন্তু দুদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকার পরও শ্বশুড় বাড়ির কোনো লোকজন ওই গৃহবধূর খোঁজখবর নেয়নি। এরপর সুস্থ্য হয়ে স্ত্রী নিজেই মির্জাপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে (১৬ নভেম্বর) দুপুরে মির্জাপুর থানা পুলিশ ঘাতক স্বামী আবু তাহেরকে গ্রেপ্তার করে।

এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই মুরাদ জাহান বলেন, এ ঘটনায় স্বামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। রোববার দুপুরে তাকে টাঙ্গাইল জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্যান্য আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।