জেলা সংবাদ

নোয়াখালীতে ১০ অক্টোবর প্রয়াত কামরুল হাসান মঞ্জু স্মরণে শোক-সংহতি সভা

প্রকাশ: ০৭ অক্টোবর ২০১৯

নিজস্ব প্রতিনিধি ■ বাংলাদেশ প্রেস

গণমাধ্যম বিষয়ক বেসকারি উন্নয়ন সংস্থা ম্যাস্ লাইন মিডিয়া সেন্টার এমএসসি’র প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী পরিচালক, তৃণমূল সাংবাদিকতার পথিকৃৎ, দেশে কমিউনিটি রেডিওর অন্যতম উদ্যোক্তা ও খ্যাতিমান আবৃত্তিশিল্পী প্রয়াত কামরুল হাসান মঞ্জুর স্মরণে নোয়াখালীতে শোক-সংহতি সভা আয়োজন করা হয়েছে। 

আগামী ১০ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় জেলা শহর মাইজদীতে বিআরডিবি মিলনায়তনে এ শোক-সংহতি সভা অনুষ্ঠিত হবে। নোয়াখালী অঞ্চলে এমএমসি’র সাথে সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমকর্মীদের পক্ষ থেকে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। 

আয়োজনের মধ্যে থাকছে প্রয়াত কামরুল হাসান মঞ্জুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন, স্মৃতিচারণমূলক আলোচনা, প্রকাশনা এবং কামরুল হাসান মঞ্জুর আবৃত্তি অ্যালবাম থেকে আবৃত্তি পরিবেশন।

উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে এমএমসি নোয়াখালীর প্রাক্তন জেলা প্রতিনিধি সাংবাদিক আবু নাছের মঞ্জু জানান, শোক-সংহতি সভায় এমএমসি’র প্রাক্তন কর্মকর্তা, এমএমসি’র প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত তৃণমূল সংবাদকর্মী, জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ে কর্মরত সাংবাদিক, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব, আবৃত্তিশিল্পী, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি সহ প্রয়াত কামরুল হাসান মঞ্জুর ভক্ত অনুরাগীরা অংশগ্রহণ করবেন। 

এ আয়োজনকে সফল করে তুলতে ঢাকা, নোয়াখালী, ফেনী ও লক্ষীপুর জেলায় প্রাক্তন এমএমসিয়ানরা কাজ করে যাচ্ছেন। সভায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে প্রয়াত কামরুল হাসান মঞ্জুর ভক্ত অনুরাগীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

উল্লেখ্য-গত কামরুল হাসান মঞ্জু ২১ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে রাজধানীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৫ বছর। ওইদিন সন্ধ্যার দিকে তিনি নিজ বাসায় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রাতেই দাফনের জন্য তার মরদেহ গ্রামের বাড়ি যশোর নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর সেখানে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

কামরুল হাসার মঞ্জু ম্যাস্ লাইন মিডিয়া সেন্টার এমএমসি প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে তিনি তৃণমূল গণমাধ্যমকর্মীদের দক্ষতা উন্নয়নে অসাধারণ অবদান রাখেন। 

বাংলাদেশে যে কজন মানুষের হাত ধরে সাংগঠনিকভাবে আবৃত্তিচর্চা শুরু হয়েছিল তাদের মধ্যে কামরুল হাসান মঞ্জু অন্যতম। বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করেছেন।