জেলা সংবাদ

নড়িয়ার চরাঞ্চলের মানুষ নাইম বেপারীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ !

প্রকাশ: ১৫ জুলাই ২০১৯

নড়িয়া (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি:

শরীয়তপুর জেলার নড়িয়ার উপজেলার পদ্মা নদী তীরবর্তী চরাঞ্চল নওপাড়া ইউনিয়ন ও পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকার সাধারন মানুষ নাইম বেপারীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। রাত-দিন আতঙ্কে কাটায় ঐ অঞ্চলের খেটে খাওয়া কৃষক ও নিরিহ পরিবারগুলোর নারীরা। দিন গড়িয়ে রাত এলেই এই আতঙ্ক আরো বেড়ে যায় নাইম আতঙ্ক। এ ব্যাপারে নাইম বেপারীর বক্তব্যের জন্য বার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায় নি।

খোঁজ নিয়ে ও ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, শরীয়তপুর জেলার নড়িয়ার উপজেলার পদ্মা নদীতীরবর্তী চরাঞ্চল নওপাড়া ইউনিয়ন ও পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন এলাকায় স্থানীয় ছালাম বেপারীর ছেলে নাইম বেপারীর ভয়ে সর্বদা আতঙ্কিত থাকে। বিশেষ করে যুবতী নারীরা বেশি আতঙ্কিত রয়েছে। মধ্যরাতে মাঝে মধ্যেই সে হানা দেয় বিভিন্ন বাড়িতে। সেখানে যুবতী নারীদের সম্ভ্রোম নষ্ট করতে চায়। তার কথা মতো কাজ না করলেই সে বিভিন্নভাবে হয়রানি করে।  

তার একটি বাহিনী রয়েছে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ভুক্তভোগীরা। তারা বলেন, সন্ধ্যা হলেই ওই নাইম বাহিনীর উৎপাতে রাতের ঘুম হারাম হয়ে যায়। ওদের জন্যে ছেলে-মেয়েরা ঘুমাইতে পারেনা, শুধুই কি সম্পদ লুটে নেয়, সুযোগ বুঝে নারীদেরকেও ধরে নিয়ে নানা ধরনের নির্যাতন করে থাকে।

আরও জানা যায়, পদ্মানদী বেষ্টিত হয়ে গ্রামগুলি একেকটি দ্বীপে পরিনত হওয়ায় গ্রামগুলোর সঙ্গে উপজেলার যোগাযোগ অনেকটা কঠিন হয়ে পড়েছে। শুষ্ক মৌসুমে পায়ে হেঁটে চলাচল করা গেলেও নৌকা ও ট্রলার এ এলাকার যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম। মূল ভূখন্ড থেকে অনেকটা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার সুযোগে এ অঞ্চলের লোকজন নাইম বাহিনীর হাত থেকে ইজ্জত রক্ষায় এলাকার নারীরা এখন আতঙ্কে রাত কাটাচ্ছেন। তাদেরকে অজানা এক ভয় সবসময় তাড়া করছে। এ কারণে সন্ধ্যার পর বর্তমান এলাকার অনেক মহিলা ঘরের বাইরে বের হতে সাহস পায় না। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন নারী বলেন, মহিলারা রাতের বেলায় প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাইরেও যেতে সাহস পায় না নাইম বেপারীর ভয়ে। এছাাড়াও সে (নাইম) মাদক ব্যবসা, মাদক সেবন থেকে শুরু করে সমস্ত অসামাজিক কর্মকান্ডে জড়িত। আমরা এর থেকে প্রতিকার চাই। এজন্য পুলিশ প্রশাসন সহ যথাযথ কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।    

এদিকে, এ ব্যাপারে একাধিকবার ইউনিয়ন পরিষদে অভিযোগ করা হলেও কোন এক অদৃশ্য কারণে ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে ওই নাইম বেপারী। অন্যদিকে, এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নাইম বেপারীর বক্তব্যের জন্য বার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায় নি।