জেলা সংবাদ

  • নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সপ্তম শ্রেণির ছাত্র গ্রেফতার

    নবম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সপ্তম শ্রেণির ছাত্র গ্রেফতার

  • নয়নের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক-বিয়ে সবই স্বীকার মিন্নির

    নয়নের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক-বিয়ে সবই স্বীকার মিন্নির

  • রাজশাহীর বড়াল নদীতে ভাসছে ৪ লাশ

    রাজশাহীর বড়াল নদীতে ভাসছে ৪ লাশ

  • কুমিল্লায় গাছে-গাছে বিয়ে!

    কুমিল্লায় গাছে-গাছে বিয়ে!

  • খুলনা মেডিকেলে ডেঙ্গুতে এক নারীর মৃত্যু

    খুলনা মেডিকেলে ডেঙ্গুতে এক নারীর মৃত্যু

মামলা না নিয়ে বর্ষার বাবার মুখ-দাঁত ভেঙে দেয়ার হুমকি দেন ওসি

প্রকাশ: ১৯ মে ২০১৯

রাজশাহী প্রতিনিধি ■ বাংলাদেশ প্রেস

অপহরণের পর আসামির স্বজনের হুমকি আর অপমান সইতে না পেরে  আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আকতার বর্ষা। আত্মহত্যার আগেই পুলিশের কাছে অপহরণের মামলা করতে গিয়ে নিরাশ হয়ে ফিরেন তার বাবা। মামলা না নিয়ে উল্টো তাকে পিটিয়ে মুখ-দাঁত ভেঙে দেয়ার হুমকি দেন মোহনপুর থানার ওসি আবুল হোসেন। শুধু তাই নয়, পরপর চারদিন থানায় গভীর রাত পর্যন্ত আটকে রেখে তাকে হয়রানিও করা হয়।

মোহনপুর উপজেলা সদরে বর্ষার বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে এমন তথ্য পাওয়া যায়। তারা বলেন, সঠিক সময়ে পুলিশ কঠোর ব্যবস্থা নিলে বর্ষাকে হয়তো আত্মঘাতী হতে হতো না।

বর্ষার বোন জানান, বাকশিমুল উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী বর্ষা স্কাউট দলের সেকেন্ড ক্যাপ্টেন ছিল। স্কুলে যাতায়াতের সময় প্রায় ৬ মাস ধরে তাকে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে আসছিল পাশের বাড়ির আনিস উদ্দিনের বখাটে পুত্র মুকুল। তার প্রস্তাবে সাড়া না দিয়ে বিষয়টি বর্ষা বাড়িতে জানায়। পরে পরিবারের সদস্যরা উপজেলা পরিষদের নারী ভাইস চেয়ারম্যানকেও এ ঘটনা অবহিত করেন। তবে তারা ভাবতেই পারেননি, বর্ষাকে অপহরণ করার মতো ঘটনা ঘটাবে মুকুল।

তিনি আরও জানান, গত ২৩ এপ্রিল প্রাইভেট পড়তে যেতে চায়নি বর্ষা। তার সহপাঠী প্রতিবেশী সোনিয়া অনেকটা জোর করেই সেদিন তাকে নিয়ে যায়। এরপর সোনিয়া বাড়ি ফিরলেও ফিরে আসেনি বর্ষা। বিকেলে তারা খবর পান, বাড়ি থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে খানপুর বাগবাজার এলাকায় অচেতন অবস্থায় বর্ষা পড়ে আছে। সেখান থেকে উদ্ধার করে তাকে আনা হয় উপজেলা পরিষদের গেটে। ওই দিন সন্ধ্যায় তার বাবা থানায় অপহরণের মামলা করতে যান। তবে মোহনপুর থানার ওসি আবুল হোসেন নানা অজুহাতে রাত ১২টা পর্যন্ত তাকে আটকে রাখেন। পরে বর্ষার অবস্থার অবনতি হলে রাত সাড়ে ১২টায় পুলিশের গাড়িতে করেই তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। রাতেই পুলিশ অভিযুক্ত মুকুলকে গ্রেফতার করে। কিন্তু সকালেই তাকে ছেড়ে দেয়। এরপর টানা চার দিন মামলা করতে গেলেও নানা ছুতোর মামলা নেয়নি পুলিশ।

বর্ষার বাবা আব্দুল মান্নান চাঁদ বলেন, 'আমরা এসপির কাছে যাব বিষয়টি জানতে পেরে প্রতিদিন থানায় ডেকে আটকে রাখা হচ্ছিল। পরে একদিন ওসিকে বলি, যদি মামলা না নেন, তো বলে দেন। হয়রানি কেন করছেন? একথা বলতেই ওসি ক্ষিপ্ত হয়ে বলেন, পিটিয়ে দাঁত-মুখ ভেঙে দেব।'

আব্দুল মান্নান বলেন, এরপর মোহনপুরের সাবেক ইউএনও বর্তমানে এডিসি আলমগীর কবীরকে বিষয়টি ফোনে জানাই। তিনি জেলা পুলিশ সুপারকে জানান। পুলিশ সুপার বর্ষাকে নিয়ে যেতে বললে তাকে সব খুলে বলি। এরপর ওসি থানায় মামলা নেন। তবে তিনি ধর্ষণের অভিযোগ বাদ দেন। ওসি বলেন, মেডিকেল রিপোর্ট ছাড়া ধর্ষণের মামলা নেওয়া যাবে না।

এ বিষয়ে ওসি আবুল হোসেন দাবি করেন, তিনি কোনো হয়রানি করেননি। মারধর করতেও চাননি।

তার প্রচেষ্টাতেই মুকুলসহ চার আসামি গ্রেফতার হয়েছে বলেও দাবি করেন এ পুলিশ কর্মকর্তা।

বর্ষার মা ফরিদা বেগম বলেন, বর্ষা বাড়ি ফিরে তাদের জানায়, সহপাঠী সোনিয়া তাকে প্রাইভেট পড়ার জন্য ডেকে নিয়ে যায়। পরে সে রুমাল দিয়ে তার নাক ধরে। এরপর বর্ষা অচেতন হয়ে পড়ে। জ্ঞান ফিরে সে নিজেকে বাড়ি থেকে ৬ কিলোমিটার দূরে বাগবাজার এলাকায় দেখতে পায়। নিজের শরিরে থাকা জামার বদলে অন্য জামা দেখতে পায়। তার পাশে তখন অভিযুক্ত মুকুল ও দেলোয়ার নামের একজন ভ্যানচালক ছিল। তবে পুলিশ অপহরণ মামলায় দেলোয়ারকে আসামি করেনি। জামা বদল থাকায় ধারণা করা হচ্ছিল, তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে।

ফরিদা বেগম আরও বলেন, ২৭ এপ্রিল মামলার পর মুকুলকে গ্রেফতার করা হলে শুরু হয় চরম গালাগাল ও হুমকি। আসামিরা বাড়ি এসে মেয়েদের এসিড নিক্ষেপের হুমকি দেয়। অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে। গত বৃহস্পতিবার গোসল করতে গেলে বর্ষাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল দেওয়া হয়। এতে অভিমানে মেয়েটি আত্মহত্যা করে।

মোহনপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা রহমান রিক্তা বলেন, একটি মেয়ে মারা গেলেও আরও দুই মেয়ে নিয়ে চরম আতঙ্কে আছেন বর্ষার বাবা। তাদের নিরাপত্তা ও অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তি দাবি করেন তিনি।

রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের সাংসদ আয়েন উদ্দীন বলেন, এ ঘটনায় জড়িত ও দায়িত্বে অবহেলাকারীদের শাস্তির আওতায় আনার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।

বর্ষার আত্মহত্যার ঘটনায় ১৩ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন তার বাবা। পুলিশ এ মামলায় তিনজনকে গ্রেফতার করেছে। আসামি মুকুল কারাগারে থাকলেও অন্য আসামিরা বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়েছে। আসামি সোনিয়া আদালত থেকে জামিন নিয়ে পরিবারসহ পালিয়েছে। গতকাল দুপুরে তাদের বাড়ি গেলে তালা ঝুলতে দেখা যায়।

পরবর্তী খবর পড়ুন : বুধবার থেকে আসছে ঈদের নতুন নোট


আরও পড়ুন

হোয়াইট হাউজের কাছে গোলাগুলিতে একজন নিহত, আহত ৫

হোয়াইট হাউজের কাছে গোলাগুলিতে একজন নিহত, আহত ৫

এবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতির দপ্তর ও বাসভবন হোয়াইট হাউজের কাছে ...

দুই লাখ পিস ইয়াবাসহ মিয়ানমারের আট নাগরিক আটক

দুই লাখ পিস ইয়াবাসহ মিয়ানমারের আট নাগরিক আটক

কক্সবাজারের টেকনাফের অদূরে সেন্ট মার্টিন্সের গভীর সমুদ্রে দুই লাখ পিস ...

শেখ হাসিনার নির্দেশে দলের বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে শুদ্ধি অভিযান

শেখ হাসিনার নির্দেশে দলের বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে শুদ্ধি অভিযান

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নির্দেশে দলের বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে ...

ফেসবুক ভেঙে দিতে ট্রাম্পের প্রস্তাবে জাকারবার্গের জবাব

ফেসবুক ভেঙে দিতে ট্রাম্পের প্রস্তাবে জাকারবার্গের জবাব

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও কংগ্রেসের কয়েকজন সদস্যের সঙ্গে সাক্ষাৎ ...

নয়নের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক-বিয়ে সবই স্বীকার মিন্নির

নয়নের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক-বিয়ে সবই স্বীকার মিন্নির

বরগুনায় আলোচিত রিফাত হত্যায় মামলায় তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নিকে ...

ঢাকার ক্যাসিনো সাম্রাজ্যের বিস্তার যে নেপালিদের হাত ধরে

ঢাকার ক্যাসিনো সাম্রাজ্যের বিস্তার যে নেপালিদের হাত ধরে

ঝকঝকে আলোকচ্ছটায় রমরমা জুয়ার আড্ডায় প্রতিদিন উড়ত কোটি কোটি টাকা। ...

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের 'ইউনিট-২' এর ভর্তি পরীক্ষা শুরু

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের 'ইউনিট-২' এর ভর্তি পরীক্ষা শুরু

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের চার বছর মেয়াদি স্নাতক (সম্মান) ...

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তিযুদ্ধ শুরু

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তিযুদ্ধ শুরু

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ক’ ইউনিটের (বিজ্ঞান অনুষদ) ...