নারী

নববধূকে ধর্ষণে ব্যর্থ যুবকের এলাহী কাণ্ড

প্রকাশ: ১৬ নভেম্বর ২০১৯     আপডেট: ১৬ নভেম্বর ২০১৯

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ■ বাংলাদেশ প্রেস

প্রতীকী ছবি

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নববধূকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে হামলায় সফিকুল ইসলাম (২২) নামে এক প্রতিবন্ধী যুবক নিহত হয়েছেন। অভিযুক্ত ধর্ষণচেষ্টাকারী বখাটে ইমাম হোসেন ও তার লোকজন তাকে কুপিয়ে হত্যা করে বলে অভিযোগ উঠে। এ সময় আরও অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার বাসুদেব ইউনিয়নের বৈষ্টবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত সফিকুল আখাউড়া উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের মৃত আবদুল কাদির মিয়ার ছেলে। পুলিশ চারজনকে আটক করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, রাত ৮টার দিকে বৈষ্টবপুর গ্রামের নববিবাহিত এক যুবক প্রকৃতির ডাকে ঘর থেকে বের হন। এ সুযোগে গ্রামের বখাটে যুবক ইমাম হোসেন তার ঘরে ঢুকে নববধূকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। গৃহবধূর চিৎকারে তার স্বামীসহ বাড়ির লোকজন ছুটে এসে ইমাম হোসেনকে আটক করে।

খবর পেয়ে ইমাম হোসেনের লোকজন দা, লাঠিসহ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ওই নববিবাহিত যুবকের বাড়িতে হামলা চালায়। হামলাকারীদের মধ্যে ছিলেন একই গ্রামের কাউছার, শাহীন বেগ, জাকির, ভূঁইয়া শাহীন, শাহজাহান, আনোয়ার, মনির চৌধুরী ও ছাইদুল।

এ সময় পাশের বাড়ির বাক প্রতিবন্ধী যুবক সফিকুল ইসলাম সেখানে দেখতে গেলে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে হামলাকারীরা। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অন্তত ১০ জন।

তারা হলেন- রোকেয়া, চম্পা, মাহমুদ আলী, আহম্মদ আলী, সিরাজ, জাহাঙ্গীর, আশিক, শরীফ, বাদশা ও মুছা। এর মধ্যে সিরাজ, মাহমুদ ও আশিকের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়া হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) মো. সেলিম গণমাধ্যমকে বলেন, রাত থেকেই ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন আছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন। পুলিশ ইতিমধ্যে জাকির, মোয়াজ্জেম, মামুন ও বাতেন নামে সন্দেহভাজন চারজনকে আটক করেছে।