খেলা

শুক্রবার থাইল্যান্ড যাচ্ছে বাংলাদেশ হকি দল

প্রকাশ: ১১ জুলাই ২০১৯

ক্রীড়া প্রতিবেদক ■ বাংলাদেশ প্রেস

থাইল্যান্ডের চনবুরিতে হতে যাওয়া ইনডোর এশিয়া কাপ হকিতে অংশ নিতে শুক্রবার দেশ ছাড়বে বাংলাদেশ হকি দল। বুধবার দল ঘোষণা হলেও ভিসা পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা ছিল। তবে বৃহস্পতিবার খেলোয়াড় ও কর্মকর্তাদের ভিসা নিশ্চিত হয়েছে। শুক্রবার বেলা ১১টা ২০ মিনিটে দেশ ছাড়বে বাংলাদেশ দল।

ইনডোর এশিয়া কাপে প্রথমবারের মতো অংশ নেবে লাল-সবুজের হকি দল। ১৫ থেকে ২১ জুলাই অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতা। বাংলাদেশ দল শুক্রবার ব্যাংককে পৌঁছে একদিন বিশ্রাম নিয়ে শনিবার থেকে অনুশীলন শুরু করবে। সোমবার উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশ মালয়েশিয়ার বিপক্ষে মাঠে নামবে।

এর আগে বুধবার থাইল্যান্ডগামী দলের নাম ঘোষণা করে বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন। ১২ জন খেলোয়াড় ছাড়াও যে দলে আছেন হেড কোচ হামিদরেজা, স্থানীয় কোচ জাহিদ হোসেন রাজু এবং ম্যানেজার জামিল আবদুন নাসের। এই আসরে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দেবেন ফরহার আহমেদ শিতুল।

এই ঘরানার হকির সঙ্গে বাংলাদেশের পরিচয় নেই বললেই চলে। দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ খেলোয়াড় রাসেল মাহমুদ জিমি দেশ ছাড়ার আগে যেমন সে কথা স্বীকার করলেন। তারকা এই মিডফিল্ডার বলেন, কোচের অধীনে এ কদিন বিকেএসপির ইনডোরে খেলাটির নিয়মকানুন নিয়ে ধারণা নিয়েছেন তারা।

যতটুকু জেনেছেন এবং শিখেছেন, তাই দিয়ে একটা ভালো শুরু করতে চাইছেন জিমিরা, ‘‘এটা একটা ভালো উদ্যোগ। প্রথমবারের মতো আমরা ইনডোর টুর্নামেন্ট খেলতে যাচ্ছি। ইউরোপের যেসব দল নিয়মিত ইনডোর হকি খেলে তাদের ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স এবং টিম কম্বিনেশন অনেক ভালো হয়। কারণ ছোট জায়গায় খেলতে হয়।’’

এই খেলায় একজন গোলকিপারসহ মোট ছয়জন খেলোয়াড় এক দলের হয়ে খেলে। দল হয় সর্বোচ্চ ১২ জন নিয়ে। এই আসরে এশিয়ার ২০টি দল চারটি গ্রুপের বিভক্ত হয়ে খেলবে। ‘এ’ গ্রুপে বাংলাদেশের সঙ্গী তিনবারের চ্যাম্পিয়ন ইরান, মালয়েশিয়া, স্বাগতিক থাইল্যান্ড এবং ফিলিপাইন।

শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে একাধিক ম্যাচ থাকাকে ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখছেন জিমি, ‘‘আমাদের গ্রুপে রয়েছে ইরান, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড এবং ফিলিপাইন। ইরান শেষ তিনবারের চ্যাম্পিয়ন এবং বিশ্বকাপেও তারা ব্রোঞ্জ পেয়েছে। এ ছাড়া মালয়েশিয়াও অনেক ভালো দল। সব মিলিয়ে শক্তিশালী প্রতিপক্ষদের বিপক্ষে খেলেই নিজেদের মানটা যাচাই করার সুযোগ পাব। যেহেতু এটা প্রথম টুর্নামেন্ট। এখানে কিছু একটা করতে ও নিয়মিত খেলতে পারলে আমার মনে হয় বাংলাদেশও ইনডোর হকিতে ভালো করবে।’’

ইনডোর এশিয়া কাপ উপলক্ষে ইরানি অভিজ্ঞ কোচ হামিদরেজা বোখারাইকে নিয়োগ দিয়েছিল হকি ফেডারেশন। এই কোচের অধীনে বিকেএসপিতে ইনডোর হকির নিয়মকানুন সম্পর্কে জেনেছেন খেলোয়াড়রা।

হামিদরেজা একাধিকবার ইরানকে কোচিং করিয়ে ইনডোর হকিতে চ্যাম্পিয়ন করেছেন। সেই অভিজ্ঞতা দিয়েই তিনি গড়ে তুলতে চেয়েছেন বাংলাদেশকে। দলের তরুণ অনেক খেলোয়াড় থাকলেও তার পছন্দের তালিকায় ছিলেন সিনিয়ররা।

জিমি জানালেন, যেহেতু ফিল্ড হকির সঙ্গে ইনডোর হকির নিয়মকানুনের তারতম্য আছে তাই যারা দ্রুত খেলাটা রপ্ত করে নিতে পেরেছেন শুধু তাদের নিয়েই গড়া হয়েছে দল।

কোচের প্রশংসাও ঝরেছে জিমির কণ্ঠে, ‘‘গ্রুপ পর্বে প্রথমবারই আমাদের অনেকগুলো বড় দলের সঙ্গে খেলতে হবে। নতুন কোচ খুবই ভালো, তার কোচিংও অসাধারণ। খুব অল্প সময়ে উনি যেভাবে ট্রেনিং করিয়েছেন এবং আমরা যেভাবে তার কোচিংয়ের সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে উঠেছি, কোচের বক্তব্য অনুযায়ী এত কম সময়ে অন্য কোনো দল এতটা উন্নতি করতে পারে না, যেটা আমরা করেছি। উনি আমাদের বিভিন্ন দলের ভিডিও ক্লিপ দেখিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন কাদের বিরুদ্ধে কীভাবে খেলতে হবে।’’

১২ সদস্যের দল :


অসীম গোপ (গোলকিপার),আবু সাঈদ নিপ্পন (গোলকিপার), ইমরান হাসান পিন্টু, রাসেল মাহমুদ জিমি, আশরাফুল ইসলাম, খোরশেদুর রহমান, ফরহাদ আহমেদ শিতুল, ফজলে হোসেন রাব্বি, সারওয়ার হোসেন, মাইনুল ইসলাম কৌশিক, মিলন হোসেন, রোমান সরকার।