রাজনীতি

  • নৌকার পক্ষে মনোনয়ন কিনলেন আন্দালিব রহমান পার্থের ছোট ভাই ড. আশিকুর রহমান শান্ত

    নৌকার পক্ষে মনোনয়ন কিনলেন আন্দালিব রহমান পার্থের ছোট ভাই ড. আশিকুর রহমান শান্ত

  • জামায়াত নেতাদের মনোনয়ন: ক্ষোভ ও হতাশায় বিএনপি নেতারা

    জামায়াত নেতাদের মনোনয়ন: ক্ষোভ ও হতাশায় বিএনপি নেতারা

  • দ্বিতীয় দিনে বিএনপির মনোনয়ন বিক্রি ১২১৩

    দ্বিতীয় দিনে বিএনপির মনোনয়ন বিক্রি ১২১৩

  • মহাজোট থেকেই নির্বাচন করবে জাতীয় পার্টি: হাওলাদার

    মহাজোট থেকেই নির্বাচন করবে জাতীয় পার্টি: হাওলাদার

  • প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিএনপির ৩৬ হাজার ‘গায়েবি’ মামলা

    প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিএনপির ৩৬ হাজার ‘গায়েবি’ মামলা

আজ চট্টগ্রামে আলোচিত এইট মার্ডার দিবসের ১৮ তম বার্ষিকী

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০১৮     আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৮

নাছির ধ্রুবতারা

"রক্তাক্ত বাংলাদেশ-লাঞ্চিত মানবতা-ধর্ষিত জাতীয়তা, জামাত-বিএনপি জোটের রাজনীতি ও দেশ পরিচালনার মূল কথা।"
আজ চট্টগ্রামে আলোচিত এইট মার্ডার দিবসের ১৮তম বার্ষিকী। বাংলাদেশের ইতিহাসে এইভাবে প্রকাশ্যে ব্রাশফায়ার করে একসাথে এতজন ছাত্রনেতা হত্যাকান্ডের ঘটনা আর নেই। ২০০০ সালের ১২ জুলাই চট্রগ্রাম নগরীর বহদ্দারহাটের কাছে দিন দুপুরে ইসলামী ছাত্র শিবিরের ক্যাডারদের ব্রাশ ফায়ারে ৮ ছাত্রলীগ নেতাকর্মী নিহত হন। ঐদিন চট্টগ্রাম গর্ভমেন্ট কমার্শিয়াল ইনিস্টিটিউটের সাবেক ভিপি ও সাবেক এ.জি.এসসহ ৮ ছাত্রলীগ নেতাকর্মী দলীয় কর্মসূচীতে অংশ নেয়ার জন্য যাওয়ার পথে বহদ্দারহাটের কাছে তাদের মাইক্রোবাস থামিয়ে জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে দিবালোকে ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে।



এই ঘটনা সে সময় সারাদেশে ব্যাপক নিন্দার ঝড় উঠে। এইট মার্ডার হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। নারকীয় হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন ছাত্র সমাজ ফুলে ওঠে আন্দোলনে।  এ হত্যাকাণ্ডের মামলায় রায়ে এখনো কার্যকর হয় নি। এ নিয়ে সংঘটনের নেতাকর্মীদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ  রয়েছে। ছাত্রলীগ সূত্রে জানা গেছে, ২০০০ সালের ১২ জুলাই চট্টগ্রামের শেরশাহ পলিটেকনিক এলাকা থেকে মাইক্রোবাসে করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে  অংশ গ্রহণ করার জন্য বাকলিয়াস্থ সরকারি কমার্শিয়াল ইনস্টিটিউটে যাচ্ছিলেন। গাড়িটি বহদ্দারহাট পুকুরপাড় এলাকায় আসলে আরেকটি মাইক্রোবাস তাদের সামনে এসে গতিরোধ করে। গতিরোধ করার মুহূর্তের মধ্যেই ব্রাশফায়ার শুরু করে বর্বর শিবির ক্যাডাররা।


এ সময় গাড়ির ভেতরেই লুটিয়ে পড়েন এতে ছাত্রলীগের ছয় নেতা, তাদের মাইক্রোবাসের চালক ও একজন অটোরিকশার চালক। এ ঘটনায় নিহতরা হলেন সরকারি কমার্শিয়াল ইনস্টিটিউট (পলিটেকনিক এলাকাস্থ) ছাত্র সংসদের ভিপি হাসিবুর রহমান হেলাল, এজিএস রফিকুল ইসলাম সোহাগ, ইনস্টেটিউটের ছাত্র জাহাঙ্গীর হোসেন, বায়েজিদ বোস্তামী ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, শেরশাহ কলেজ ছাত্রলীগের সহসম্পাদক আবুল কাশেম, জাহিদ হোসেন এরশাদ, মাইক্রোবাস চালক মনু মিয়া এবং অটোরিকশা চালক কাশেম । এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়। পরে মামলাটি ‘এইট মার্ডার’ হিসাবে পরিচিতি লাভ করে। মামলায় আসামি করা হয় ২২ জনকে। বিচার চলাকালে ২ জন আসামি মারা যায়। ঘটনার আট বছর পর ২০০৮ সালের ২৭ মার্চ মামলাটির রায় দেন চট্টগ্রামের দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ একরামুল হক চৌধুরী। রাষ্ট্রপরে ৪৩ জন সাক্ষীর স্বাক্ষ্য গ্রহণ ও জেরা শেষে চট্টগ্রামের অতিরিক্ত দায়রা জজ ২০০৮ সালে ৪ জনকে মৃত্যুদণ্ডিত দণ্ডিত করে রায় দেন। রায়ে ৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়। রায়ে শিবির ক্যাডার সাজ্জাদ হোসেন খান, মো. আলমগীর কবির ওরফে বাট্টা আলমগীর, মো. আজম ও মো. সোলায়মানকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। এ ছাড়া আরও তিনজন শিবির ক্যাডার হাবিব খান, এনামুল হক ও আবদুল কাইয়ুমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।


যাবজ্জীবন দণ্ডাদেশ পাওয়া আসামিরা এখনো পলাতক।মৃত্যুদণ্ডাদেশ পাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে সাজ্জাদ হোসেন খান ভারতের কারাগারে, অন্য তিনজন দেশের কারাগারে বন্দী রয়েছে। এই ফাঁসির রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন চার আসামি। একইসঙ্গে ফাঁসির রায় অনুমোদনের জন্য তা ডেথ রেফারেন্স আকারে হাইকোর্টে আসে। এ মামলায় পরবর্তীতে ২০১৪ সালের এপ্রিলে আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে আসামিদের আপিল ও ডেথ রেফারেন্সের শুনানি শেষে বিচারপতি মো. আব্দুল হাই ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেব নাথের ডিভিশন বেঞ্চ চট্টগ্রামের বহদ্দারহাটে বহুল আলোচিত ‘এইট মার্ডার’ হত্যা মামলায় ফাঁসির ৪ আসামিকে খালাস দেন হাইকোর্ট।  রায়ে খালাসপ্রাপ্তরা হলেন, সাজ্জাদ হোসেন খান ওরফে সাজ্জাদ, আলমগীর কবির ওরফে মানিক, আজম ও মো. সোলায়মান। ১৮ বছর পর আজকের এই দিনে বাংলাদেশ প্রেস পরিবার সেইদিনের চরম নৃশংসতার শিকার ৮ ছাত্রনেতার স্মৃতির প্রতি জানায় বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলী। একি সাথে আলোচিত এইট মার্ডারের বিচারিক কার্যক্রম পুনরায় রিভিউ করে প্রকৃত দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান এবং যুদ্ধপরাধীদের রাজনৈতিক সংগঠন জামাত এবং ছাত্রসংগঠন ইসলামী ছাত্র শিবিরের সকল প্রকারের রাজনীতি সরকারি নির্বাহী আদেশে আজীবন নিষিদ্ধ করার দাবী জানাই। পরিশেষে বলি---
           "এদেশ আমাদের, খুনী রাজাকারের না"

আরও পড়ুন

দ্বিতীয় দিনে বিএনপির মনোনয়ন বিক্রি ১২১৩

দ্বিতীয় দিনে বিএনপির মনোনয়ন বিক্রি ১২১৩

দলীয় মনোনয়ন বিক্রিকে কেন্দ্র করে মিছিলে-স্লোগানে দিনভরমুখর ছিল নয়াপল্টনের বিএনপির ...

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিএনপির ৩৬ হাজার ‘গায়েবি’ মামলা

প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিএনপির ৩৬ হাজার ‘গায়েবি’ মামলা

নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে ৩৬ হাজার ‘গায়েবি’ মামলার তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা ...

খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টে হাজির করে শারীরিক অবস্থা দেখুন

খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টে হাজির করে শারীরিক অবস্থা দেখুন

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) ...

দ্বিতীয় দফায় সহস্রাধিক মামলার তালিকা দিল বিএনপি

দ্বিতীয় দফায় সহস্রাধিক মামলার তালিকা দিল বিএনপি

দলের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে সহস্রাধিক 'মিথ্যা ও গায়েবি' মামলার ...

প্রতিটি আসনেই জাতীয় পার্টির রিজার্ভ ভোট আছে: জিএম কাদের

প্রতিটি আসনেই জাতীয় পার্টির রিজার্ভ ভোট আছে: জিএম কাদের

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের বলেছেন, প্রতিটি আসনেই জাতীয় পার্টির ...

নয়াপল্টনে সারাদিন বিএনপির শোডাউন

নয়াপল্টনে সারাদিন বিএনপির শোডাউন

মনোনয়নপত্র বিক্রির দ্বিতীয় দিনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্যালয় নয়াপল্টন এলাকায় দলটির ...

সরকারের কথায় নির্বাচনের তারিখ পেছানো হয়েছে : কাদের সিদ্দিকী

সরকারের কথায় নির্বাচনের তারিখ পেছানো হয়েছে : কাদের সিদ্দিকী

সরকারের কথায় নির্বাচনের তারিখ পেছানো হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন কৃষক-শ্রমিক-জনতা ...

শোডাউন বন্ধে ইসির নির্দেশ

শোডাউন বন্ধে ইসির নির্দেশ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচনী আচরণবিধি প্রতিপালনে নির্বাহী ...