অন্যান্য

  • জীবননগরে ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত

    জীবননগরে ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত

  • ১১০ বছর পর কালো চিতার সাক্ষাৎ!

    ১১০ বছর পর কালো চিতার সাক্ষাৎ!

  • দুদক চেয়ারম্যান  এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন ইউ.এস. ন্যাশনাল সেন্টার ফর স্টেট অব কোর্টস প্রতিনিধি দল

    দুদক চেয়ারম্যান এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন ইউ.এস. ন্যাশনাল সেন্টার ফর স্টেট অব কোর্টস প্রতিনিধি দল

  • বিশ্ব ভালোবাসা দিবস নিয়ে ইসলাম কি বলে.?

    বিশ্ব ভালোবাসা দিবস নিয়ে ইসলাম কি বলে.?

  • বসন্তের আমেজে মুখরিত রাবি ক্যাম্পাস

    বসন্তের আমেজে মুখরিত রাবি ক্যাম্পাস

কার স্বার্থে শাজাহান খানের মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের স্বার্থ বিরোধী উদ্যোগ

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৮     আপডেট: ১১ অক্টোবর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলাদেশ প্রেস

স্থান, কাল, পাত্রের জ্ঞান ছাড়া আচরণে অভ্যস্ত রাজনীতিক আবার আমাদের রাজনীতির মঞ্চে সক্রিয়। যার একটা অবিবেচনাপ্রসূত হাসি সারা দেশকে প্রায় অচল করে দিতে গিয়েছিলো, সেই শ্রমিক নেতা, মন্ত্রী আবার সক্রিয় দেশের বর্তমান নাজুক রাজনৈতিক পরিস্থিতে। এবার তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের নিয়ে এ কোন খেলায় মাতলেন, বুঝা যাছে না। 

মহান মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা, আমাদের আশা, চাওয়া, ভরসার বাতিঘর মামতাময়ী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের চাহিদা জানাবার মোর্চা "মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ"। ৯০ দশকে ছাত্রশিবির মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের আন্দোলন তথা মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবার যাতে রাষ্ট্রীয় কাজে জড়িত না হতে পারে তার জন্য চক্রান্ত আরম্ভ করে। যা ৯৬ সালে ছাত্রশিবিরের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিট এবং পরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছড়িয়ে পড়ে। সেটা ছিল পুরোপুরি মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের ষড়যন্ত্র। ৯৬ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসলে, বিষয়টি তিনি আমলে নেন। মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য বরাদ্দকৃত কোটার সুযোগ পেতে যে বয়স সীমা তা বেশিরভাগ মুক্তিযোদ্ধারা ততদিনে তা পেরিয়ে যায়, তাই তাদের জন্য রক্ষিত কোটার বয়স পেরিয়ে গেলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জন্য সম্প্রসারিত করে বরাদ্দ দেন। ২০০১-০৬ জামাত-বিএনপি জোট রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় ২০০৩-০৪ এ ছাত্রশিবির আবারো উন্মুক্ত ভাবে কোটা বিরোধী আন্দোলনের পরিচালনা করে। তখন থেকে মুলত এই মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল রাখার দাবিতে এবং স্বাধীনতা বিরোধী জামাত-শিবিরের বিরুদ্ধে কর্মসূচি ভিত্তিক আন্দোলন শুরু হয় যার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন বর্তমান মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের আহ্বায়ক জনাব মেহেদী হাসান মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম এর ব্যানারে।এ পর্যন্ত জামাত-শিবির কতৃক কোটা বিরোধী যত আন্দোলন হয়েছে তার প্রতিবাদে জীবন বাজি রেখে যে লোকটি রাজপথে আন্দোলন সংগ্রামের নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন সেই ব্যক্তিটাই হচ্ছেন জনাব মেহেদী হাসান, সভাপতি - মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটি, যিনি বর্তমানে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ এর কেন্দ্রীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

২০১৮ তে ছাত্রদল-ছাত্রশিবির কতৃক মিথ্যা তথ্য দিয়ে সাধারণ ছাত্রদের মাঝে উস্কানি ছড়িয়ে দিলে কোটা সংস্কার নামে আন্দোলন আরম্ভ হয়। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানরা ছাত্রদল-ছাত্রশিবির কতৃক এই উস্কানির বিপক্ষে তখন রাস্তায় নামে। রাজপথে মিছিল মিটিং সভা সমাবেশ সংবাদ সম্মেলন মাননীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী মহোদয়ের নিকট স্মারকলিপি পেশ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বরাবর কেন্দ্রীয় জেলা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কতৃক স্মারকলিপি পেশ। সম্প্রতি কোটা পর্যালোচনা কমিটিকে দায়িত্ব দিলে এবং কোটা সংস্কার কমিটি কতৃক সরকারের ১ম ও দ্বিতীয় শ্রেনিতে কোটা ব্যবস্থা কার্যকর না রাখার মত দিলে এবং মন্ত্রীপরিষদ তাতে সম্মত হলে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সম্মান বিবেচনায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানরা রাস্তার মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ নামে আন্দোলন আরম্ভ করে এবং তা ছড়িয়ে পড়ে। 

মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে তাদের আশা,  চাওয়া জানাতে মাঠে থাকা অবস্থায় দুদিন আগে হঠাৎ শাহবাগে মুল মঞ্চের নাম পরিবর্তন ও আন্দোলন স্থগিত বিষয়ে মিডিয়াতে ঘোষণা আসে। যা পুরো আন্দোলনের পিছে ছুরি মারা এবং মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সাথে চরম বিশ্বাসঘাতকতা। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পাশে যারা কখনো দাড়ায়নি, যাদের কখনো মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের পাশে দেখাযায়নি এমন ব্যাক্তিবর্গকে নিয়ে নৌমন্ত্রী জনাব শাহজাহান খান রীতিমত মঞ্চকে হাইজ্যাক করার মত ঘোষণাটি দেন যে ১৪ তারিখ পর্যন্ত মঞ্চের যেকোনো কর্মসূচি স্থগিত। কার স্বার্থে আওয়ামীলীগ নেতা শাজাহান খান সাহেব মুক্তিযোদ্ধা পরিবার এর স্বার্থ রক্ষার আন্দোলন নস্যাৎ করতে এই কাজ করলেন? তিনি এমনকি মঞ্চের নাম পরিবর্তন ও মুখপাত্রকেও পরিবর্তন করে হেলাল মোর্শেদ খান এর নাম ঘোষণা করেন। আতিকুল ইসলাম বাবু(যার বাবা কখনও মুক্তিযুদ্ধে কখনও অংশগ্রহণ ই করে নাই সূত্রঃ যশোর জেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা বৃন্দ) যাকে ৫০,০০০০০ পঞাশ লক্ষ টাকার বিনিময়ে আমদানি করেন বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাস এর ঘনিষ্ঠ জন জামাত এর এজেন্ট মুক্তিযোদ্ধা সংসদ এর সাবেক মহাসচিব প্রশাসন এমদাদ হোসেন মতিন, মাহবুবুল ইসলাম প্রিন্স(ঢা:বি:), আল-মামুন(ঢা:বি:), সরকার ফরহানা(রাঃবিঃ), মনির মোল্লাদের নিয়ে সার্থান্বেসি গংদের এ সিদ্ধান্ত ও চক্রান্ত মুক্তিযোদ্ধা পরিবার মানে না। যার চাহিদা, সে মাঠে থাকবে। যার নাই, সে থাকবে না। এটাকে ব্যক্তি স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্য বানালে সে/তারা আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হবে।


উচিত ১০ অক্টোবর ইতিহাসে নিকৃষ্টতম গ্রেনেড হামলা মামলার রায়। অবশ্যই ছাত্রদল-ছাত্রশিবির, স্বাধীনতা বিরোধী চক্র মাঠে থাকবে। যারা ১৪ তারিখ পর্যন্ত মুল মঞ্চের নাম পরিবর্তন করে আন্দোলন স্থগিত ঘোষণা করলো, তারা কি তাহলে কর্মসূচি স্থগিত করে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানদের মাঠ থেকে উঠিয়ে বিএনপি-জামাতের কাছে মাঠ বরাদ্দ দিলেন? এ প্রশ্নটা সাভাবিক ভাবেই এসে যায়।  হোক ঘোষণাটা কোনো মন্ত্রীর কাছ থেকে এসেছে।  আমরা কি মোস্তাকদের ষড়যন্ত্র ভুলে গেছি,  না ভুলিনি। নৌমন্ত্রী জনাব শাহজাহান খান এবং হেলাল মোর্শেদ এর এমন আচরনে আমাদের সংকিত করে। ব্যক্তিগত পরিচয়ের সার্থ হাসিলের জন্য মঞ্চের সাথে বিশ্বাসঘাতকতাকারি বলে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার এদের অবাঞ্চিত ঘোষণা করলে খুব কি অবাস্তব হবে?  বলাতো যায় না, আজতীয় নিরভাচনের আগে  কেউ মোস্তাকের ভূমিকায় যাবে না!! অপশক্তিকে মোকাবেলা করে যেকোনো প্রতিরোধ গড়তে মুক্তিযোদ্ধা পরিবার সর্বদা সচেষ্ট। তাই সবাইকে সচেষ্ট থাকতেই হবে।

দেশে ফিরে আসার শর্তে শিক্ষাবৃত্তি দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

দেশে ফিরে আসার শর্তে শিক্ষাবৃত্তি দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার “প্রধানমন্ত্রী ফেলোশিপ ২০১৯” ঘোষণা করেছে যার আওতায় ...

শিক্ষা ও মেধাকে প্রাধান্য দিয়ে আমাদের এগোতে হবে : মোস্তাফা জব্বার

শিক্ষা ও মেধাকে প্রাধান্য দিয়ে আমাদের এগোতে হবে : মোস্তাফা জব্বার

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, অস্ত্র আর ...

নির্বাচনে কারচুপি হলে কেন প্রতিহত করলেন না : বিএনপিকে নাসিম

নির্বাচনে কারচুপি হলে কেন প্রতিহত করলেন না : বিএনপিকে নাসিম

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ করে বিএনপির প্রার্থীদের মামলা প্রসঙ্গে ...

অভিন্ন পদ্ধতিতে হবে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ

অভিন্ন পদ্ধতিতে হবে শিক্ষক-কর্মচারী নিয়োগ

বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরকারি শিক্ষকের আদলে অভিন্ন পদ্ধতিতে উপাধ্যক্ষ, অধ্যক্ষ ...

‘ভালোবাসা দিবসের ঠিক ৯ মাস পর কেন শিশু দিবস?’

‘ভালোবাসা দিবসের ঠিক ৯ মাস পর কেন শিশু দিবস?’

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসের ঠিক ৯ মাস তিন দিন পর কেন ...

সবচেয়ে দ্রুত গতিসম্পন্ন ট্রেন এসে পৌঁছেছে দেশে

সবচেয়ে দ্রুত গতিসম্পন্ন ট্রেন এসে পৌঁছেছে দেশে

দেশের বৃহত্তম রেলওয়ে কারখানা সৈয়দপুরে পৌঁছেছে ইন্দোনেশিয়া থেকে আমদানি করা ...

তিন দিনে ৪ মুসল্লির মৃত্যু বিশ্ব ইজতেমার মাঠে

তিন দিনে ৪ মুসল্লির মৃত্যু বিশ্ব ইজতেমার মাঠে

গেল তিন দিনে চার মুসল্লির মৃত্যু হয়েছে টঙ্গীর তুরাগতীরে বিশ্ব ...

জামায়াত বিলুপ্তির পরামর্শ দিয়ে ব্যারিস্টার রাজ্জাকের পদত্যাগ

জামায়াত বিলুপ্তির পরামর্শ দিয়ে ব্যারিস্টার রাজ্জাকের পদত্যাগ

জামায়াত ইসলামিকে বিলুপ্ত ঘোষণা ও ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে অবস্থান ...