• ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটির ৭২ জনের বিরুদ্ধেই নানা অভিযোগ

    ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটির ৭২ জনের বিরুদ্ধেই নানা অভিযোগ

  • চালু হলো ফেসবুকের বিকল্প বাংলাদেশিদের ‘হার্টসবুক’

    চালু হলো ফেসবুকের বিকল্প বাংলাদেশিদের ‘হার্টসবুক’

  • ওরা শোভন-রাব্বানীর চেয়েও খারাপঃ প্রধানমন্ত্রী

    ওরা শোভন-রাব্বানীর চেয়েও খারাপঃ প্রধানমন্ত্রী

  • স্বঘোষিত ‘মানবিক ছাত্রনেতা’ গোলাম রাব্বানী আপনাকে বলছিঃ নুসরাত জাহান শিমু

    স্বঘোষিত ‘মানবিক ছাত্রনেতা’ গোলাম রাব্বানী আপনাকে বলছিঃ নুসরাত জাহান শিমু

  • ১ কোটি টাকা শাখা ছাত্রলীগকে ঈদ সালামি

    ১ কোটি টাকা শাখা ছাত্রলীগকে ঈদ সালামি

মুক্তিযােদ্ধাদের সার্টিফিকেট দেয়ার পদ্ধতিটা ছিল ভুল

মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র উদ্ধারের বিপক্ষে ছিলেন তাজউদ্দীন

প্রকাশ: ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

আমীর-উল ইসলাম

স্বাধীনতার পর পরই বঙ্গবন্ধু অস্ত্র উদ্ধারের ডাক দিলেন, এটা তাজউদ্দীন সাহেবের মনঃপূত হয়নি। কিন্তু তাজউদ্দীন সাহেব এটা বঙ্গবন্ধুকে বলতেও পারেননি। কারণ বলতে গেলে আবার সন্দেহ করে বসতে পারেন যে, এদের অস্ত্র তােলার ব্যাপারে তাজউদ্দীন সাহেবের আপত্তি কেন—নিশ্চয় কোন কারণ আছে। কারণ, বঙ্গবন্ধুকে তার চারপাশের লােক নানারকম কান ভাঙানি দিচ্ছিল। তাজউদ্দীন সাহেবের পরিকল্পনা ছিল, অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ না করে এর পেছনে যে মানুষগুলাে আছে তাদেরকে নিয়ন্ত্রণ করা। যদি অস্ত্রের পেছনের লােকগুলাে নিয়ন্ত্রণ করা যায় তাহলে অস্ত্র স্বাভাবিকভাবেই নিয়ন্ত্রণ হয়ে যাবে। সেজন্য তিনি দেশ মুক্ত হবার সাথে সাথে প্রতিটি জেলায় মুক্তিযােদ্ধাদের জন্য পুনর্বাসন কেন্দ্র খুলেছিলেন।

সেখানে তাদের অস্ত্রসহ তারা থাকবে, তাদেরকে ট্রেনিং দিয়ে উপযুক্ত করে গড়ে তােলা হবে। এরপর তারা নিজ নিজ পেশায় চলে যাবে। তারা রাজাকারদের অস্ত্র উদ্ধারে সাহায্য করবে। তারা এই ক্যাম্পে থাকবে, এতে যত অর্থই লাগুক না কেন। তার প্রথম বিবেচনা ছিল মুক্তিযােদ্ধাদের জন্য ক্যাম্প করা। তাতে প্রত্যেকটি মুক্তিযােদ্ধা আমাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে এবং নতুন স্বাধীনতাপ্রাপ্ত দেশে প্রয়ােজনে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের কাজে তাদের লাগানাে যেত। কিন্তু পরবর্তীতে এটি আর করা হল না। তাদেরকে সােজা বলা হল, তােমরা অস্ত্র জমা দিতে আসাে। তাতে যেগুলাে ভারি অস্ত্র, যেগুলাে নিয়ে ঘুরে বেড়ানাে যায় , সেগুলাে জমা হল, কিন্তু ছােট ছােট অস্ত্র রয়েই গেল।

সেগুলাে কোনদিনই উদ্ধার করা গেল না এবং এই ছেলেগুলােকে আমরা হারিয়ে ফেললাম। অথচ এরা ছিল মুক্তিযুদ্ধের সবচেয়ে বড় ফসল। মুক্তিযােদ্ধাদের সার্টিফিকেট দেয়ার পদ্ধতিটা ছিল ভুল। মুক্তিযুদ্ধ শেষ হয়ে গেল বলে মুক্তিযােদ্ধাদের কাজও শেষ হয়ে গেল, এটা কিন্তু ঠিক হয়নি। তাজউদ্দীন ভাইসহ আমাদের ইচ্ছে ছিল, আমরা নিজেরাও মুক্তিযােদ্ধাদের সাথে এই ক্যাম্পে এসে থাকব। দরকার হলে আমরা আমাদের নিজেদের কাজে যাব না। আমরা এই ক্যাম্পের সাথে থাকব যতদিন দেশের পুনর্গঠন না হয়। মুক্তিযােদ্ধাদের সম্পূর্ণভাবে স্থিতিলাভ করতে যতদিন সময় লাগবে ততদিন পর্যন্ত আমাদের ক্যাম্প চলতেই থাকবে। মুক্তিযুদ্ধ একটা প্রক্রিয়া ছিল, চলমান প্রক্রিয়া, যা ১৬ ডিসেম্বরেই শেষ হয়ে যায়নি। পরে ক্রমশ সেই প্রক্রিয়াটার সাথে বিরােধ ঘটল। এবং যা হল তাতে মনে হয়, মুক্তিযুদ্ধ আমাদের শেষ হয়ে গেছে। কিন্তু তাজউদ্দীন সাহেব এবং আমরা বাংলাদেশে সত্যিকার ন্যায়বিচার, সমাজে সুষম বণ্টন ইত্যাদি বাস্তবায়ন করবার জন্য মুক্তিযােদ্ধাদের মাধ্যমে যে সুশৃঙ্খল কর্মীবাহিনী সৃষ্টি করতে চেয়েছিলাম, সে সুযােগ আর পাওয়া যায়নি।


তাজউদ্দীন আহমদ - আলোকের অনন্তধারা

পরবর্তী খবর পড়ুন : শিক্ষার ‘প্রাইভেটাইজেশন’ সমস্যা সমাধানের পথ নয়


আরও পড়ুন

টাকা পাওয়ার কথা স্বীকার করা ৩ জাবি ছাত্রলীগ নেতা

টাকা পাওয়ার কথা স্বীকার করা ৩ জাবি ছাত্রলীগ নেতা

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার পর শাখা ছাত্রলীগকে ...

কাউন্সিলে বড় পরিবর্তন আসছে আওয়ামী লীগে

কাউন্সিলে বড় পরিবর্তন আসছে আওয়ামী লীগে

কাউন্সিলের মাধ্যমে বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে। দল ...

বিমানের যাত্রীসেবা নিশ্চিত করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

বিমানের যাত্রীসেবা নিশ্চিত করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

সততা এবং নিষ্ঠার সঙ্গে বিমানের যাত্রীসেবা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন ...

কুমারী মেয়েদের হাটে বিক্রি

কুমারী মেয়েদের হাটে বিক্রি

বুলগেরিয়ার স্টারা জাগোরা। রঙিন মেলা বসেছে শহরের। মেলার মতোই সাজানো ...

আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্টের সমাবেশে হামলা, নিহত ২৪

আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্টের সমাবেশে হামলা, নিহত ২৪

আফগানিস্তানের পারওয়ান প্রদেশে প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির নির্বাচনি সমাবেশে বিস্ফোরণে নারী ...

শামচ্ছুজামান দুদু হুকুমের আসামি হলেন কী? প্রধানমন্ত্রী নিরাপত্তা বিষয়ে কোন আপোষ নয়

শামচ্ছুজামান দুদু হুকুমের আসামি হলেন কী? প্রধানমন্ত্রী নিরাপত্তা বিষয়ে কোন আপোষ নয়

সাম্প্রতিক সময়ে সামচ্ছুজামান দুদু "ডিবিসি" চ্যানেলে টকশোতে অংশ নেন। মাননীয় ...

নওগাঁর রাণীনগরের সাদেকুল তিন বছর যাবত গৃহবন্দি!

নওগাঁর রাণীনগরের সাদেকুল তিন বছর যাবত গৃহবন্দি!

নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার ভবানীপুর মোবারক পাড়া গ্রামে সাদেকুল ইসলাম (৩৮) ...

স্বর্ণজয়ী রোমান সানার মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

স্বর্ণজয়ী রোমান সানার মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

এশিয়া কাপ ওয়ার্ল্ড র‌্যাঙ্কিং টুর্নামেন্টে (স্টেজ-৩) স্বর্ণ পদক জয় করা ...