ছাত্রলীগের বর্তমান ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাধারণ সম্পাদক নিয়ে উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচার

প্রকাশ: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯

মেহেদী হাসান

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এর সদ্য ঘোষিত ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে নিয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও অনলাইন পোর্টাল সমূহে যে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে তা উদ্দেশ্যমূলক অপপ্রচার যা ভিত্তিহীন।

ভারপ্রাপ্ত সভাপতির বাবা আব্দুল হালিম খান যিনি ঢাকাস্থ বৃহত্তর বরিশালের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক এবং ছাত্রলীগ নেতা ছিলেন। একটা চক্র তার বাবাকে ১৯৯৬ সালে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছিলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে এবং যার প্রাপ্ত ভোট ছিল ১৯৫ টি (১০ম স্থান) ।

ঐ নির্বাচনে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিল গোলাম ফারুক অভি (জাতির পার্টি- ৩৩৫৫৬ ভোট) , ২য় হয়েছিল সৈয়দ মোজাম্মেল হোসেন আলাল (বিএনপি - ৩১৮৪৪ ভোট), ৩য় সৈয়দ ময়নুল হক (আওয়ামী লীগ - ২৫৪০৩ ভোট), ৪র্থ রাশেদ খান মেনন ( ওয়ার্কার্স পার্টি - ১৪১২৪ ভোট), ৫ম বজলুর রশিদ (জামায়াতে ইসলামী - ৫২৬৮ ভোট),৬ষ্ঠ আব্দুল মালেক সর্দার (ইসলামী ঐক্যজোট - ২৪১৮ ভোট) বাকি চার জন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিল

যারা অপপ্রচার চালাচ্ছেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতির পরিবার বিএনপি ঘরানার তাদের মূল উদ্দেশ্য কি?

ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য হিন্দু ধর্মাবলম্বী স্কন পন্থী । এটা আমাদের মুসলিম ধর্মের বিভিন্ন মাযহাব বা তরিকা পন্থীদের মত একটা মতাদর্শ।

আমরা কারো ব্যক্তিগত ধর্মীয় অনুভূতি নিয়ে নিশ্চয়ই উগ্র সাম্প্রদায়িকতার তকমা লাগিয়ে দিতে পারিনা।

যে বা যারা ছাত্রলীগের বর্তমান দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতৃত্বকে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছেন আমরা মনে করি সেটা জননেত্রী শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তকে বিতর্কিত করা ও মাননীয় সভানেত্রীর নেতৃত্বকে প্রশ্নবিদ্ধ করার ষড়যন্ত্র মূলক অপচেষ্টা।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নামক সংগঠনটি মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রধান নেতৃত্বদানকরী ছাত্র সংগঠন। এই সংগঠনটি এবং এর নেতৃবৃন্দের নিয়ে নানা সময়ে পরিকল্পিতভাবে ষড়যন্ত্র হয়েছে এবং এখনও তা বিদ্যমান।


মেহেদী হাসান

সভাপতি,

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটি

চেয়ারম্যান,

মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম কেন্দ্রীয় সংসদ

সদস্য,

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক উপ কমিটি