সম্পাদকীয়

  • কৃষক বঞ্চিত হবার নেপথ্যে কি!

    কৃষক বঞ্চিত হবার নেপথ্যে কি!

  • সাধারণ ছাত্ররা কৃষকের পাশে, ছাত্রলীগ কই?

    সাধারণ ছাত্ররা কৃষকের পাশে, ছাত্রলীগ কই?

  • ঠাঁই নাই ঠাঁই নাই ছোট সে তরী

    ঠাঁই নাই ঠাঁই নাই ছোট সে তরী

  • তাঁর প্রত্যাবর্তনের ফসল 'সমৃদ্ধ বাংলাদেশ'

    তাঁর প্রত্যাবর্তনের ফসল 'সমৃদ্ধ বাংলাদেশ'

  • সন্তানের আহাজারি ও দৃপ্তকণ্ঠে নৈতিক শপথ

    সন্তানের আহাজারি ও দৃপ্তকণ্ঠে নৈতিক শপথ

‘সংবিধানপ্রণেতা ড. কামাল’ নিয়ে বিভ্রান্তি

প্রকাশ: ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮     আপডেট: ০৪ ডিসেম্বর ২০১৮

অধ্যাপক সেলিম তোহা

বাংলাদেশের সংবিধানের প্রণেতা ড. কামাল হোসেন - এ কথাটি বিভ্রান্তিকর। বাংলাদেশের সংবিধান রচনা করেছে বাংলাদেশের জনগণের পক্ষে বাংলাদেশের গণপরিষদ। আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি তাঁর প্রিয় মাতৃভূমিতে আসার পর ১১  জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি হিসেবে এক সাংবিধানিক আদেশ জারি করেন এবং ১৯৭০ সালের তদানীন্তন পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে জনগণের ভোটে যাঁরা জাতীয় পরিষদ এবং প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন তাঁদেরকে নিয়ে গণপরিষদ গঠন করেন। যে গণপরিষদকে কোন আইন প্রণয়ণের ক্ষমতা দেয়া হয়নি। কেবলমাত্র বাংলাদেশের জন্য একটি সংবিধান রচনার দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল। 

৪৩০ সদস্য বিশিষ্ট গণপরিষদের প্রথম অধিবেশনে ৩৪ সদস্যবিশিষ্ট একটি খসড়া সংবিধান প্রণয়ন কমিটি গঠন করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৭২ সালের ১২ অক্টোবর তারিখে কমিটি খসড়া উপস্থাপনের পর ৭৪টি পৃথক বৈঠকে দীর্ঘ প্রায় ৩০০ ঘণ্টা আলোচনা-পর্যালোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এই খসড়া সংবিধানের ১৬৫টি সংশোধনী প্রস্তাব উত্থাপিত হয়। এর মধ্যে ৮৬টি সংশোধনী প্রস্তাব গণপরিষদ কর্তৃক গৃহীত হয়। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান খসড়া সংবিধান প্রণয়নের সময় বলেন, “বাংলাদেশের এই সংবিধান আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদের রক্ত দিয়ে লিখিত।” অতঃপর গণপরিষদে দীর্ঘ আলোচনার পর একই বছরের ৪ নভেম্বর একটি হস্তলিখিত সংবিধানে গণপরিষদের সকল সদস্য স্বাক্ষর করেন। 

১৬ ডিসেম্বর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে আমাদের সংবিধান যাত্রা শুরু করে। সংবিধান প্রণয়ন কমিটির আহবায়ক হিসেবে ডঃ কামাল হোসেনের ভূমিকা যেমন গুরুত্বপূর্ণ, একইভাবে বাংলাদেশ সংবিধান রচনার জন্য কমিটির বাকী ৩৩ জন সদস্য বিশেষ করে সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এ.এইচ.এম কামরুজ্জামান ও ব্যারিস্টার আমির-উল ইসলামের গুরুত্বও হালকা করে দেখার সুযোগ নেই। কিন্তু অবাক করার মতো বিষয় এই যে, সংবিধান প্রণয়নের পর থেকে বিভিন্ন মহলে সংবিধান বিষয়ে ড. কামাল হোসেনকে এমনভাবে উপস্থাপন করা হয় যেন তিনি একাই পুরো সংবিধানটি লিখেছেন। এটা কি বিভ্রান্তিকর নয়? 

সংবিধান তো ‘বিষাদসিন্ধু’ নয়- যার একক কৃতিত্ব মীর মশাররফ হোসেনের। এটি নয় কোন নিছক গ্রন্থ কিংবা গল্প উপন্যাস, যার একক কৃতিত্ব আরোপ করা যায় গ্রন্থকার কিংবা উপন্যাসিককে। সংবিধান রচনা একটি সংঘবদ্ধ কাজ। যে কাজে সম্পৃক্ত সকল সদস্যের ভূমিকা সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। আর একক কৃতিত্ব যদি আরোপ করতেই হয়- সে কৃতিত্বের দাবিদার বাংলাদেশ রাষ্ট্রের জনক বঙ্গবন্ধু, যাঁর প্রত্যক্ষ দিকনির্দেশনায় রচিত হয়েছে এ সংবিধান। 

প্রসঙ্গতঃ ১৯৯২ সালে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির গঠনতন্ত্র প্রণয়ন করা হয়। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি একটি গঠনতন্ত্র রচনার জন্য তদানীন্তন আইন বিভাগের শিক্ষক জনাব এস এম সোলাইমানকে আহবায়ক, আমাকে এবং ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক জনাব সাইফুল ইসলামকে সদস্য করে খসড়া গঠনতন্ত্র প্রণয়নের জন্য একটি কমিটি গঠন করেন। আমরা সে গঠনতন্ত্র প্রণয়ন করি এবং সেই গঠনতন্ত্রের খসড়াটি আমি নিজ হাতে লিখি। এখন যদি বলা হয় যে, এই গঠনতন্ত্র প্রণয়ন করেছেন জনাব এস এম সোলাইমান- সেটি কি সমীচীন হবে? 

গত ৭ জানুয়ারি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি জাতির পিতার যে ম্যুরাল উন্মোচন করেন এই ম্যুরাল নির্মাণ কমিটির আহবায়ক হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট ট্রেজারার হিসেবে আমাকে দায়িত্ব প্রদান করেন। এখন যদি প্রকাশ করা হয় এই ম্যুরালের নির্মাতা অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা এটি কি সঠিক হবে? জাতিসংঘের চার্টার প্রণয়ন কমিটির আহবায়ক ছিলেন তদানীন্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রুজভেল্ট। এখন যদি বলা যায়, জাতিসংঘ সৃষ্টি করেছে প্রেসিডেন্ট রুজভেল্ট এটি কি সঠিক হবে? তাহলে তদানীন্তন বিশ্ব নেতা উইনস্টন চার্চিল, রাশিয়ার যোসেফ স্তালিন, চীনের মাও সেতুং তাদের এই চার্টার/জাতিসংঘ গঠনের পিছনে কি কোনই ভূমিকা ছিল না?

তাই বাংলাদেশের সংবিধান প্রণেতা ড. কামাল হোসেন এ কথাটি মোটেও যুক্তিযুক্ত নয়।


লেখক-ট্রেজারার, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ও অধ্যাপক, আইন বিভাগ

পরবর্তী খবর পড়ুন : স্ত্রী-শ্যালিকার টাকায় নির্বাচনে মান্না


আরও পড়ুন

লঞ্চ কেবিনের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হচ্ছে কাল

লঞ্চ কেবিনের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু হচ্ছে কাল

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঢাকা থেকে বরিশালসহ পুরো দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীদের ...

সাবেক এমপি আব্দুল আউয়ালকে দুদকে তলব

সাবেক এমপি আব্দুল আউয়ালকে দুদকে তলব

দুর্নীতির নানা অভিযোগে পিরোজপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য ...

বান্দরবানে  সন্ত্রাসীদের গুলিতে ক্য চিং থোয়াই নামে এক ব্যবসায়ী নিহত

বান্দরবানে সন্ত্রাসীদের গুলিতে ক্য চিং থোয়াই নামে এক ব্যবসায়ী নিহত

বান্দরবান সদর উপজেলার রাজবিলা ইউনিয়নে অস্ত্রের মুখে নিজ বাসা থেকে ...

মুক্তিযোদ্ধাদের বয়স নির্ধারণে সংশোধিত পরিপত্র বাতিল

মুক্তিযোদ্ধাদের বয়স নির্ধারণে সংশোধিত পরিপত্র বাতিল

মুক্তিযোদ্ধাদের বয়স ১৯৭১ সালের ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত ন্যুনতম ১২ বছর ...

ঈদে পেশাদার চালক ছাড়া কেউ গাড়ি চালাতে পারবে না

ঈদে পেশাদার চালক ছাড়া কেউ গাড়ি চালাতে পারবে না

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, আসন্ন ঈদে পেশাদার ড্রাইভার ছাড়া ...

এবার ঈদযাত্রায় মন্ত্রী-এমপিদের সুপারিশে মিলবে না ট্রেনের টিকিট

এবার ঈদযাত্রায় মন্ত্রী-এমপিদের সুপারিশে মিলবে না ট্রেনের টিকিট

মন্ত্রী, সংসদ সদস্য ও সচিবরা নিজে ট্রেনে চড়ে বাড়ি না ...

বিএনপিতে যোগ দেয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান মান্নার

বিএনপিতে যোগ দেয়ার প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান মান্নার

বগুড়া-৬ উপনির্বাচন সামনে রেখে বিএনপিতে যোগ দেয়ার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে ...

খালেদার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি ফের পিছিয়েছে

খালেদার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি ফের পিছিয়েছে

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন ...