সম্পাদকীয়

  • বিএনপির অগ্নিসন্ত্রাস, কামালের 'গণতন্ত্র'!

    বিএনপির অগ্নিসন্ত্রাস, কামালের 'গণতন্ত্র'!

  • ফেসবুক সন্ত্রাস শুরু হয়েছে কি!

    ফেসবুক সন্ত্রাস শুরু হয়েছে কি!

  • বিএনপির নির্বাচনী সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ, তবে...

    বিএনপির নির্বাচনী সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ, তবে...

  • নির্বাচন নিয়ে কি নতুন ষড়যন্ত্র হচ্ছে!

    নির্বাচন নিয়ে কি নতুন ষড়যন্ত্র হচ্ছে!

  • প্রার্থীর ছড়াছড়ি, সামলানো যাবে তো?

    প্রার্থীর ছড়াছড়ি, সামলানো যাবে তো?

বিএনপি আন্দোলনে যাবে নাকি ভোটে?

প্রকাশ: ০৭ নভেম্বর ২০১৮     আপডেট: ০৭ নভেম্বর ২০১৮

আবদুল মালেক, উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস

কি করবে বিএনপি, যদি আজকের সংলাপ ব্যর্থ হয়? আন্দোলনে যাবে নাকি ভোটে যাবে?

সংবিধান না রাজপথ, কোন পথে আসবে সংকটের সমাধান? এ প্রশ্ন দুয়ারে দাঁড়িয়েছে। ঘড়ির কাঁটা দ্রুত ঘুরছে জাতীয় নির্বাচন সামনে রেখে। দেশবাসী গভীর আগ্রহে চোখ রাখছে গণভবনের দিকে। আজ বুধবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সংলাপের শেষ পর্ব ভেস্তে গেলে, সমঝোতা না হলে রাজনীতি কোন পথে গড়াবে, এ প্রশ্ন সবার মনে। 


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. কামাল হোসেনের সূচিত সংলাপ রাজনীতিতে চাঞ্চল্যই আসেনি, জনমনে যে আশার আলো দেখা দিয়েছিলতা এখন নিভতে বসেছে। সরকার সংবিধান থেকে একচুল না নড়ার নীতিতে অটল থেকে সংলাপ শেষ করতে যাচ্ছে। যে স্বস্তি এসেছিল সেখানে নতুন করে উদ্বেগের কালো ছায়া দেখা দিয়েছে। একের পর এক রাজনৈতিক সংলাপ শেখ হাসিনার উষ্ণ আতিথেয়তার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আলাপ-আলোচনা আন্তরিকতাপূর্ণ পরিবেশে হলেও ভোটযুদ্ধ সামনে রেখে দুই পাল্লায় বিভক্ত রাজনৈতিক শক্তি এখন মুখোমুখি। সর্বশেষ বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীর উত্তম যেমন ড. কামালের নেতৃত্বের প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেছেন, তেমনি যুক্তফ্রন্ট নেতা বিকল্পধারার সভাপতি সাবেক প্রেসিডেন্ট বদরুদ্দোজা চৌধুরীও মহাজোটের শরিকানা লাভ করতে যাচ্ছেন। একদিকে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগনির্ভর মহাজোটের পাল্লা যেমন ভারী হচ্ছে, তেমনি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শক্তিও বাড়ছে।


নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন বাতিল হওয়া জামায়াতে ইসলামীর সমর্থনও যে ভোটযুদ্ধে বিএনপির সাংগঠনিক শক্তিনির্ভর ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্টের পক্ষেই থাকবে এ কথা বলা যায়। তেমনি একদিন সরকারকে প্রবল ঝাঁকুনি দেওয়া হেফাজতে ইসলাম তাদের আধ্যাত্মিক নেতা শাহ আহমদ শফীর নেতৃত্বে সরকারবিরোধী সেই অবস্থান থেকে দীর্ঘদিনের পরিচর্যায় তাদের দাবি-দাওয়া পূরণে এখন মুজিবকন্যা শেখ হাসিনার প্রতি তাদের আনুগত্যই প্রকাশ করেননি, কৃতজ্ঞতাবোধ থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আলেম-ওলামাদের সমাবেশ ঘটিয়ে সংবর্ধনাও দিয়েছেন। শেখ হাসিনাকে তারা ‘কওমি জননী’ উপাধি দেন এবং মাতৃত্বসুলভ স্নেহ ছায়ায় আলেম-ওলামা ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের প্রতি রাখার আবেদন জানান।


একটি অংশগ্রহণমূলক গ্রহণযোগ্য নির্বাচন ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় একটি অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক উন্নত আধুনিক শোষণমুক্ত বাংলাদেশ নির্মাণ সব দলের ওপর দায়িত্ব। দুই ভারী পাল্লায় বিভক্ত রাজনীতির হিসাব-নিকাশে কর্নেল অলি আহমদের নেতৃত্বাধীন এলডিপি এখন কোন পাল্লায় ওঠে তা দেখার অপেক্ষায়। শোনা যাচ্ছে, দলের মধ্যে মতবিরোধ আছে। এক পক্ষ চায় মহাজোটে যেতে, আরেক পক্ষ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে। বাম গণতান্ত্রিক জোট কোনো পাল্লায় যাবে না তবে সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচনী তফসিল সমঝোতার আগে ঘোষণা না করার আহ্বান জানিয়ে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চাইছে।


সেনাশাসক জিয়ার প্রতিষ্ঠিত বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব বি চৌধুরী এখন শেখ হাসিনার উচ্ছ্বসিত প্রশংসায় এতটাই আত্মহারা যে, ত্রিরত্ন বলে তাঁকে মূল্যায়ন করছেন। বলছেন, তিনি তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও বঙ্গবন্ধুকন্যা। বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম গর্বের সঙ্গে যেমন নিচ্ছেন, তেমনি তার নেতা জিয়াউর রহমানকে বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষক বলছেন, যেটি তাঁর দীর্ঘ বিএনপির রাজনীতির সময়কালে বলেননি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা তার ৩৮ বছরের রাজনীতিতে বড় সাফল্য এখানেই এনেছেন যে, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর যারা বঙ্গবন্ধুকে অবহেলা করেছিলেন, কটাক্ষ করেছিলেন, সমালোচনার তীরে ক্ষতবিক্ষতই করেননি, ‘শেখ মুজিব’ বলে ঔদ্ধত্যের সঙ্গে নাম নিতেন, সেই তাদেরকে তার ছাতার নিচেই আনেননি, বিএনপির রাজনীতিকে এমন করুণ পরিণতির দোরগোড়ায় দাঁড় করিয়েছেন যে, বিএনপি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা যাকে নির্বাচিত করেছেন দেশের সেই কৃতী সন্তান সংবিধান প্রণেতা আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন আইনজ্ঞ ড. কামাল হোসেন আপাদমস্তক মুজিব-অন্তঃপ্রাণ রাজনীতিবিদ। বঙ্গবন্ধুই তাঁর রাজনীতির আদর্শ পুরুষ। ঐক্যফ্রন্টের অন্য নেতারাও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে তাঁর ডাকে রাজনীতিতে নিজেদের অবস্থান তৈরি করেছেন, প্রতিষ্ঠিত করেছেন এবং তাদের মনপ্রাণজুড়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুুুজিবুর রহমানই বাস করেন।


শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোটের শরিকরা একমত হয়েছেন সংবিধানের আলোকেই তারা জোটগতভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন। অর্থাৎ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গঠিত নির্বাচনকালীন সরকার থাকবে, সংসদ বহাল থাকবে এবং নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী নির্বাচন হবে। নির্বাচন কমিশন স্বাধীনভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করবে। নির্বাচনকালীন সরকার রুটিন ওয়ার্ক ছাড়া কোনো ক্ষমতা প্রয়োগের সুযোগ পাবে না। প্রশাসন নির্বাচন কমিশনকে সহযোগিতা করবে। 


মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের দুই মহাশক্তির ভোট লড়াই হবে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ। এমনি পরিস্থিতিতে গণআন্দোলনে গণঅভ্যুত্থান ঘটিয়ে দাবি আদায়ের মতো আলামত এখন ঐক্যফ্রন্টের অনুকূলে নয়। মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছিলেন, এবার বিনা চ্যালেঞ্জে ছেড়ে দেবেন না। এ ক্ষেত্রে শেষ পর্যন্ত সরকার ঐক্যফ্রন্টের কাছে নত হয়ে সমঝোতায় না এলে ভোটযুদ্ধের চ্যালেঞ্জই গ্রহণই করবে। দেশের মানুষ এখন কার্যত নির্বাচনমুখী। বিএনপির প্রার্থীরাও ভোটের মাঠে নেমে গেছেন। শেখ হাসিনা দলীয় এবং আসন সমঝোতা অনেকটাই করে ফেলেছেন। বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের দুই শক্তির ভোট লড়াই কি অনিবার্য? ঐক্যফ্রন্ট করতে গিয়ে বিএনপি জামায়াতকেই ছেড়ে আসেনি, একুশের গ্রেনেড হামলার রায়ে দণ্ডিত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান প্রশ্নেও কিছুই এখনো কিছুই বলেনি। তবে শেষ পর্যন্ত সরকার অনড় থাকলে বিএনপি কি নির্বাচনে আসবে নাকি রাজপথে কঠোর আন্দোলনে যাবে বা নির্বাচন প্রতিহতের ঘোষণা দিবে সেটিই দেখার বিষয়।

লেখকঃ উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস

পরবর্তী খবর পড়ুন : আজকের সংলাপে যাবেন না ড. কামাল


আরও পড়ুন

চট্টগ্রাম টেস্টে খেলা হচ্ছে না তামিমের!

চট্টগ্রাম টেস্টে খেলা হচ্ছে না তামিমের!

তামিম ইকবাল খুব করে চেয়েছিলেন চট্টগ্রাম টেস্টে খেলতে। সেটি এখন ...

মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ ...

মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় আজীবন কাজ করেছেন ভাসানী

মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় আজীবন কাজ করেছেন ভাসানী

মেহনতি মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী আজীবন ...

পার্লামেন্টে এবার মরিচের গুঁড়া; পুলিশের নজিরবিহীন হস্তক্ষেপ

পার্লামেন্টে এবার মরিচের গুঁড়া; পুলিশের নজিরবিহীন হস্তক্ষেপ

কিছুতেই কাটছে না দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কার রাজনৈতি ও সাংবিধানিক সংকট। গত ...

ক্যালিফোর্নিয়ায় দাবানলে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭৪, নিখোঁজ ১০১১

ক্যালিফোর্নিয়ায় দাবানলে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৭৪, নিখোঁজ ১০১১

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যে ভয়াবহ দাবানলে নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭৪। ...

হাইপার টেনশনে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা

হাইপার টেনশনে মনোনয়নপ্রত্যাশীরা

আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ ছোট বড় সব দলের ...

মুন্সীগঞ্জে বন্দুকযুদ্ধে ১০ মামলার আসামি নিহত

মুন্সীগঞ্জে বন্দুকযুদ্ধে ১০ মামলার আসামি নিহত

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার পশ্চিম বাড়ৈখালীতে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ১০ মামলার ...

নেইমারের গোলে উরুগুয়েকে সহজেই হারাল ব্রাজিল

নেইমারের গোলে উরুগুয়েকে সহজেই হারাল ব্রাজিল

আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে জয় পেয়েছে ব্রাজিল। ম্যাচে পেনাল্টি থেকে করা ...