সম্পাদকীয়

  • কৃষক বঞ্চিত হবার নেপথ্যে কি!

    কৃষক বঞ্চিত হবার নেপথ্যে কি!

  • সাধারণ ছাত্ররা কৃষকের পাশে, ছাত্রলীগ কই?

    সাধারণ ছাত্ররা কৃষকের পাশে, ছাত্রলীগ কই?

  • ঠাঁই নাই ঠাঁই নাই ছোট সে তরী

    ঠাঁই নাই ঠাঁই নাই ছোট সে তরী

  • তাঁর প্রত্যাবর্তনের ফসল 'সমৃদ্ধ বাংলাদেশ'

    তাঁর প্রত্যাবর্তনের ফসল 'সমৃদ্ধ বাংলাদেশ'

  • সন্তানের আহাজারি ও দৃপ্তকণ্ঠে নৈতিক শপথ

    সন্তানের আহাজারি ও দৃপ্তকণ্ঠে নৈতিক শপথ

আ লীগ নিজেই খামচে ধরে উন্নয়ন....

প্রকাশ: ০৪ অক্টোবর ২০১৮

আবদুল মালেক, উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস

জামায়াত নেতাকে পুলিশের কাছে থেকে যে আওয়ামী লীগ নেতা ছিনিয়ে নিয়েছে তার ব্লাড টেস্ট করুন। সে কখনোই আওয়ামী পরিবারের সদস্য হতে পারেনা। শেখ হাসিনার শত কষ্টের অর্জনকে যারা প্রশ্নবিদ্ধ করে এরা বাঙ্গালী হতে পারেনা। শেখ হাসিনার ৩৭ বছরের প্রাণান্ত পরিশ্রমের ফসল, অগ্রসরমান বাংলাদেশ। দুনিয়ার বিপরীতে দাঁড়িয়ে যুদ্ধাপরাধীর বিচার, তাঁর অন্যতম সাফল্য। কিন্তু চমকে উঠি, কর্মী সংগ্রহের নামে কিছু স্বার্থান্বেষী নেতা যখন রাজাকারের গলায় মালা দেয়। কর্মীর অাকাল পড়েছে? যারা দেশই স্বীকার করেনা, তারা অা. লীগ করবে কোনোকালে?  দিনশেষে এদের গন্তব্য কি অজানা?  তবে এসব কিসের অালামত?


অতীতের বিপর্যয়গুলো পর্যালোচনা করলে এটি স্পষ্ট, অাওয়ামী লীগের দুঃসময়ের জন্য দলটি নিজেই বহুলাংশে দায়াী। অর্জনের সমৃদ্ধ ইতিহাস সত্বেও নিজের পায়ে নিজেই কুড়াল মেরেছে স্বাধীনতার সাড়ে তিন বছরের মাথায়। ক্ষমতার বৃত্তেই লুকানো ছিল সেই ঘাতক মীরজাফর। ৭৫'র বেদনাবিধুর ও দুনিয়া কাঁপানো কালো অধ্যায়ই এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ। সেই ঘটনা কল্পনায়ও অানতে চাই না। তবে চাইলেই কি সব ভুলা যায়?


একটি সময় (১৯৭৫-৯০) ছিল যখন অাওয়ামী লীগের, বঙ্গবন্ধুর, মুক্তিযুদ্ধের, স্বাধীনতার কথা  উচ্চারন করা ছিল বিপজ্জনক। জেল-জুলুম, খুন ছিল প্রাত্যহিক বিষয়। সেই দুরবস্থার মধ্যে ১৯৮১ সালে দলের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে দেশে ফিরেন শেখ হাসিনা।  একদিকে সব হারানো বেদনা, অন্যদিকে সেনাশাসকের রক্তচক্ষু। সব মিলিয়ে ভয়ানক পরিস্থিতি। তবু হাল ছাড়েননি তিনি। 


ভাঙ্গা-গড়া, সে তো পৃথিবীর অমোঘ নিয়ম। দলের নেতৃত্ব বিভক্ত, বিভক্ত দলও। শেখ হাসিনা দল পুনর্গঠন করেন ব্যাক্তিগত শোক ভুলে, অাজ যার সুফল পাচ্ছে ১৬ কোটি নাগরিক। কিন্তু শেখ হাসিনার এই ঔদার্য্যের মর্যাদা কি দিতে পারছে তার দলের কতিপয় মন্ত্রী, এমপি, প্রভাবশালী? অাওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে কতিপয় লোভী নেতা অাজ শেখ হাসিনার অর্জনে কালিমা লেপনে সচেষ্ট, কেন? 


বঙ্গবন্ধুর সেই সত্যভাষণটি বড় মনে পড়ে, পীড়িত করে। চাটার দল সত্যিই খামচে ধরে অা. লীগের অগ্রগতি, অার এদের কারনে নেতৃত্বকে করে প্রশ্নবিদ্ধ। চাটাদের জন্যই প্রাণ দিয়েছেন সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালী। মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী, অাপনার কাছে সবিনয় নিবেদন, যারা দলের বদনাম করছে, এদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিন। অাওয়ামী লীগে জামায়াত থেকে অাসা কর্মীর কখনোই প্রয়োজন ছিলনা, হবেও না। জামায়াত নেতাকে পুলিশের কাছে থেকে যে  ছিনিয়ে নেয় তার ব্লাড টেস্ট করুন, সে কষ্মিনকালেও আওয়ামী পরিবারের সদস্য হতে পারেনা।

জয়বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।


লেখকঃ উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস।

পরবর্তী খবর পড়ুন : নোয়াখালী জেলায় উৎসব মুখর পরিবেশে ৩দিন ব্যাপী চতুর্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলা শুরু হয়েছে


আরও পড়ুন

আমেরিকা এসো, অস্ত্র হাতে আমরা প্রস্তুত: ভেনিজুয়েলার সেনাবাহিনীর চ্যালেঞ্জ

আমেরিকা এসো, অস্ত্র হাতে আমরা প্রস্তুত: ভেনিজুয়েলার সেনাবাহিনীর চ্যালেঞ্জ

ভেনিজুয়েলার সেনাবাহিনী প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর প্রতি পুনরায় আনুগত্য ঘোষণা করে ...

সৌদি রাজা সালমান আরব নেতাদের জরুরি বৈঠক ডেকেছেন

সৌদি রাজা সালমান আরব নেতাদের জরুরি বৈঠক ডেকেছেন

সৌদি রাজা সালমান বিন আব্দুল আজিজ পারস্য উপসাগরীয় সহযোগিতা পরিষদ ...

বুথ ফেরত জরিপে মোদিই প্রধানমন্ত্রী, মমতা বললেন 'বিজেপি হারবেই'

বুথ ফেরত জরিপে মোদিই প্রধানমন্ত্রী, মমতা বললেন 'বিজেপি হারবেই'

ভারতের ১৭তম লোকসভা নির্বাচনের শেষ দফা ভোটের পর বিভিন্ন সংস্থা ...

পঞ্চম ধাপে উপজেলা নির্বাচনে আ.লীগের মনোনয়ন চুড়ান্ত

পঞ্চম ধাপে উপজেলা নির্বাচনে আ.লীগের মনোনয়ন চুড়ান্ত

উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে পঞ্চম ধাপে ১৬টি উপজেলার নির্বাচনে প্রার্থী ...

পা ধরে ক্ষমা চেয়ে সেই মাকে ঘরে তুললেন ছোট ছেলে

পা ধরে ক্ষমা চেয়ে সেই মাকে ঘরে তুললেন ছোট ছেলে

ঠাকুরগাঁওয়ে ছেলেদের হাতে মারধরের শিকার সেই মায়ের পা ধরে ক্ষমা ...

ভারতের পর এশিয়ার সেরা দল বাংলাদেশ

ভারতের পর এশিয়ার সেরা দল বাংলাদেশ

ভারত এবং পাকিস্তান ম্যাচ মানেই চরম উত্তেজনা। আর দুটি দলই ...

ছাত্রলীগ নেত্রী শ্রাবণীকে অপহরণ চেষ্টা, নিরাপত্তা চেয়ে জিডি

ছাত্রলীগ নেত্রী শ্রাবণীকে অপহরণ চেষ্টা, নিরাপত্তা চেয়ে জিডি

অপহরণের আশঙ্কায় শাহবাগ থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন শ্রাবণী ইসলাম ...

তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ থেকে বিচ্ছিন্ন হলেন মোস্তাফা জব্বার

তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ থেকে বিচ্ছিন্ন হলেন মোস্তাফা জব্বার

সরকারের মন্ত্রিসভায় রদবদলের অংশ হিসেবে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের ...