সম্পাদকীয়

  • ভীতি ছড়িয়ে নয়--'লুটেরা, হাইব্রিড, কাওয়া' নিধনই হতে পারে আওয়ামীলীগের তৃতীয়বার সরকার গঠনে'র সোপান

    ভীতি ছড়িয়ে নয়--'লুটেরা, হাইব্রিড, কাওয়া' নিধনই হতে পারে আওয়ামীলীগের তৃতীয়বার সরকার গঠনে'র সোপান

  • আত্মস্বীকৃত খুনি ও সাজা ভোগ করা  ভাই

    আত্মস্বীকৃত খুনি ও সাজা ভোগ করা ভাই

  • বাংলাদেশের বিদ্যমান রাজনৈতিক দল সমূহের উৎপত্তি, তাঁদের বিশ্বাস--'চলমান গনতন্ত্র পূণ:দ্ধারের আন্দোলন'

    বাংলাদেশের বিদ্যমান রাজনৈতিক দল সমূহের উৎপত্তি, তাঁদের বিশ্বাস--'চলমান গনতন্ত্র পূণ:দ্ধারের আন্দোলন'

  • ভারতের বিএনপি ও আওয়ামীলীগ

    ভারতের বিএনপি ও আওয়ামীলীগ

  • এক ভাই লোকান্তরে, লক্ষ ভাই ঘরে ঘরে" - ইহা একখানা মিথ্যা শ্লোগান

    এক ভাই লোকান্তরে, লক্ষ ভাই ঘরে ঘরে" - ইহা একখানা মিথ্যা শ্লোগান

প্র‍য়াত রাষ্ট্রপতি জিয়া'র বেতনভাতা গেল কোথায়?

প্রকাশ: ১০ মার্চ ২০১৮     আপডেট: ১০ মার্চ ২০১৮

রুহুল আমিন মজুমদার,উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস

আমার একটি প্রশ্নের উত্তর দিন প্লিজ--প্র‍য়াত রাষ্ট্রপতি জিয়া'র বেতনভাতা গেল কোথায়?


রুহুল আমিন মজুমদার:--চট্রগ্রাম সার্কিট হাউজে সেনাবাহিনীর এক ব্যর্থ অভ্যুত্থানে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি মেজর জিয়াউর রহমান নিহত হওয়ার পর, দেশী-বিদেশী পত্র-পত্রিকা এবং ইলেক্ট্রোনিক্ মিডিয়ায় তাঁর ব্যাক্তিগত এবং পরিবারীক সৎ জীবন যাপন তুলে ধরতে মিতব্যায়ী জীবনযাপনের তথ্যচিত্র মিডিয়ায় প্রকাশ করেছিল। তৎসময়ে তাঁর পরিবারের সততার নিদর্শন সমূহ মিডিয়া অত্যান্ত করুন ও হৃদয়গ্রাহী করার উদ্দেশ্যে পরিধেয় কাপড়-চোপড় ও একটি ভাঙ্গা স্যুটকেস বাংলাদেশের জনগনের সামনে তুলে ধরেছিল।অর্থাৎ এর চেয়ে ভাল আর কিছুই জিয়ার বাড়ীতে ছিল না।


প্রতাপশালী রাষ্ট্রপতি'র অতি সাধারন জীবনযাপনের দৃশ্যাবলী'র উপস্থাপনা স্বচক্ষে দেখে বাংলাদেশের মানুষ সহজে বিশ্বাস করেছিল।-'শোকে-দু:খ্যে সারা বাংলাদেশের মানুষ মুহ্যমান হয়ে পড়েছিল। জাতী অতিমাত্রার মিতব্যায়ী প্রয়াত মহান রাষ্ট্রপতির পরিবারের ভবিষ্যত চিন্তায় চিন্তিত হয়ে পড়েছিল।


ইত্যবসরে প্রয়াত রাষ্ট্রপতি'র বিধবা স্ত্রী' বেগম খালেদা জিয়া দুই এতিম শিশুপুত্রকে পাশে বসিয়ে, সাদা শাড়ী পরিহিতবস্থায় 'বাংলাদেশ টেলিভিশনে এক হৃদয়গ্রাহী সাক্ষাৎকার প্রদান করেন। উক্তরুপ অসহায়ার করুন চাহনীতে সুশ্রুষামন্ডিত চেহারার সরকারের সর্বউচ্চপদস্থ সামরিক কর্মকর্তা' এবং প্রয়াত রাষ্ট্রপতির স্ত্রী'র নিজমূখে তাঁর পারিবারের অতি সাধারন জীবনযাপনের কল্পকাহিনী শুনে এবং দেখে দেশ বিদেশে বসবাসরত: প্রত্যেক বাঙ্গালী'র সুপ্ত আবেগে আরো অধিক গতি সঞ্চারীত হয়েছিল।


আমি যতটুকু জানি বা আপনারাও জানেন--(১) মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় সামরীক বাহিনী'র মুক্তিযোদ্ধাদের মাসিক বেতন-ভাতা অন্য সকল সরকারী কর্মকর্তাদের চাইতে দ্বিগুন কোন কোনক্ষেত্রে তিনগুন ছিল।


(২) মেজর জিয়া পত্নি 'বেগম খালেদা জিয়া মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস' স্বামীর কর্মস্থল পাকিস্তান সেনানিবাসে অবস্থান করেছিলেন।তিনি সেনাবাহিনী'র প্রাপ্ত সুবিধানুযায়ী স্বামী' মেজর জিয়ার বেতন, ভাতা সহ সকল সুবিধা নিয়মিত ভোগ করেছিলেন। 

(৩) মেজর জিয়ার মর্মান্তিক হত্যাকান্ডের পুর্বে-- প্রথমত: মেজর জেনারেল, সামরিক বাহিনী' প্রধান, সামরিক আইন প্রশাসকের সমুদয় রাজকীয় সুবিধা পেয়েছিলেন।


(৪) রাষ্ট্রপতি'র দায়িত্ব পালনরত: অবস্থায় দেশের সকল সরকারী কর্মকর্তার চাইতে উচ্চতর রাজকীয় সুবিধাদী সহ বেতন-ভাতাদি নিয়মিত উত্তোলন করেছিলেন। বর্তমান সময়েও উক্ত রীতিনীতি'র ব্যাত্যায় ঘটেনি, বরঞ্চ সর্বপয্যায় বৃদ্ধি পেয়েছে।


বিগত ৩৫/৩৬ বছর জিয়া পরিবারের ইতিহাসে তাঁর জীবতবস্থায় বা মৃত্যুর পর--'রাষ্ট্র পক্ষ, তাঁর দল এবং কি তাঁর পরিবার কখনই বলেননি যে--''মেজর জিয়া'' রাষ্ট্রীয় বেতনভাতা, প্রাপ্ত সুবিধাদী গ্রহন করতেন না।" রাষ্ট্রের সর্বোচ্ছ কর্ণধার হিসেবে বেতন-ভাতা গ্রহন করেন না--এমন অনেক রাষ্ট্র প্রধান বর্তমানেও আছে, অতীতেও ছিল। দেশ ও জাতীর মহৎ কল্যানে মেজর জিয়ার এ ক্ষেত্রে তদ্রুপ ত্যাগ থাকা অসম্ভব ছিলনা। কিন্তু অদ্যাবদি জিয়া পরিবার, তাঁর দল বিএনপি বা বাংলাদেশ সরকার--'কোনপক্ষই কোনদিন কোন প্রকার প্রেস নোট, সাংবাদিক সম্মেলন, দায়িত্বপুর্ণ কেউ সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি জিয়ার এই মহতি অবদান জাতীকে কখনো জানায়নি।'যেহেতু জানায়নি সেহেতু ধরেই নিতে পারি জাতী'র প্রতি তদ্রুপ বদন্যতা রাষ্ট্রপতি জিয়ার আদৌ ছিলনা।


ইহা অবশ্যই স্বিকায্য যে--মেজর জিয়ার উল্লেখিত বেতন ভাতা সম্পুর্ণ বৈধ আয়ের পয্যায়ভুক্ত। কিন্তু আমি বিশ্বাস করি তিনি বা তাঁর পরিবার অতি মিতব্যায়ী ছিলেন। তাঁর বিপুল পরিমাণ টাকা বাংলাদেশ বা বিদেশের কোন ব্যাংকে গচ্ছিত আছে-- তেমন কোন তথ্য পাওয়া যায়না।


প্রশ্ন হচ্ছে তাঁর এত বিপুল পরিমাণ টাকা গেল কোথায় ? কেন বেগম জিয়া বড়পুত্র তারেক জিয়াকে স্বামী 'মেজর জিয়া'র পরিত্যাক্ত প্যান্ট কেটে সেলাই করে দিতে হ'ত? কেন এতবড় বিশাল বাড়ীতে একটি মাত্র ছেড়া গেঞ্জী এবং ভাঙ্গা স্যুটকেস ছিল? জিয়া কি জুয়াড়ী ছিলেন? মদ্যপ ছিলেন? তদ্রুপ কোন কাহিনীও শুনা যায়নি বা এখনও কেউ বলেনা। জুয়াড়ি হলে ধরে নেয়া যায় পরিবার দুর্দশায় থাকতে পারে। মদ্যপ হলেও বলা যাবেনা এত বিপুল পরিমাণ টাকা একটিমাত্র বদভ্যাসে খরছ হয়ে যেতে পারে! তাহলে--!! টাকা গেল কোথায়?


আমাদের সকলের খুব ভাল ভাবে জানা আছে--'সেনাবাহিনী'র চাকুরির 'রুলস অব বিজনেসের রাজকীয় রীতিনীতি অনুযায়ী সম্পূর্ণ পরিবারের নিত্য প্রয়োজনীয় সব ধরনের বরাদ্ধ প্রাপ্তির অধিকারী যে কোন সৈনিক। এবং কি একজন নিম্নপদের সেনাকর্মকর্তার বাসার চাকর বাকরের পরিতোষিক--সরকারী অর্থে আগেও ছিল, এখনও আছে। যে হৃদয় বিদারক তথ্যচিত্র জাতীকে ক্ষতবিক্ষত করে দিয়েছিল, ঝর ঝর করে অশ্রুধারা নির্গত হয়েছিল--সেইরুপ চিত্রবৎ জীবন যাপন, সর্বনিম্ন বেতন ভুক্ত সেনাবাহিনী'র সাধারন সৈনিকের বেলায়ও হওয়ার কথা নয়। আবেগ প্রবন কোটি কোটি বাঙ্গালী'র মধ্যে একজনও---'এই ক্ষুদ্র অথছ প্রাসঙ্গিক প্রশ্নটি উত্থাপন কোন দিনও কেউ করেনি! 

কেন করেনি?


"জয়বাংলা জয়বঙ্গবন্ধু"



লেখকঃ উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস।


পরবর্তী খবর পড়ুন : ১৮ আফগান সেনা নিহত


আরও পড়ুন

ঝিনাইদহে ভুমি দস্যুরা বেপরোয়া জাল পরচা তৈরী করে কোটি টাকার জমি রেজিষ্ট্রি খুনোখুনির আশংকা

ঝিনাইদহে ভুমি দস্যুরা বেপরোয়া জাল পরচা তৈরী করে কোটি টাকার জমি রেজিষ্ট্রি খুনোখুনির আশংকা

অসৎ উদ্দেশ্যে সরকার নির্ধারিত হারের চেয়ে উচ্চ মুল্যে জমি রেজিষ্ট্রির ...

যশোরে সন্ত্রাসীদের বোমা হামলায়  যুবলীগ নেতা  আরাফাত রহমান লিটন নিহত

যশোরে সন্ত্রাসীদের বোমা হামলায় যুবলীগ নেতা আরাফাত রহমান লিটন নিহত

যশোরে সন্ত্রাসীদের বোমা হামলায় ও ছুরিকাঘাতে আরাফাত রহমান লিটন (৩২) ...

কক্সবাজার সৈকতে আরাফাত'র অকাল মৃত্যু : একটি দূর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না

কক্সবাজার সৈকতে আরাফাত'র অকাল মৃত্যু : একটি দূর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না

আমেরিকান প্রবাসী মোহাম্মদ আলী আরাফাত সদ্য স্কলারশীপ শেষ করে মা ...

চুক্তি হওয়ার পরও উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াল আমেরিকা

চুক্তি হওয়ার পরও উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াল আমেরিকা

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনের সঙ্গে সাক্ষাৎ ও চুক্তি সই ...

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির জনক ...

পার্কে শিক্ষার্থী গণধর্ষণের ঘটনায় ৩জনের স্বীকারোক্তি; ৭দিনের রিমান্ড আবেদন

পার্কে শিক্ষার্থী গণধর্ষণের ঘটনায় ৩জনের স্বীকারোক্তি; ৭দিনের রিমান্ড আবেদন

খাগড়াছড়িতে জেলা হর্টিকালচার পার্কে স্কুল শিক্ষার্থীকে গণধর্ষণের ঘটনায় আটক ৫জনের ...

সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৫ জন নিহত-আট জেলায়

সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৫ জন নিহত-আট জেলায়

দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় ৩৫ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন ...

সেলফি তুলতে গিয়ে হাতিয়ার চেয়ারম্যান ঘাটের পন্টুন থেকে পড়ে এক কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যু

সেলফি তুলতে গিয়ে হাতিয়ার চেয়ারম্যান ঘাটের পন্টুন থেকে পড়ে এক কলেজ শিক্ষার্থীর মৃত্যু

নোয়াখালীর হাতিয়ায় বেড়াতে গিয়ে পন্টুনে দাঁড়িয়ে সেলফি তোলার সময় মেঘনা নদীতে ...