সম্পাদকীয়

  • ডঃ কামাল হোসেন সাহেব নিজের বিবেক কে কত টাকায় বিক্রি করে দিলেন?

    ডঃ কামাল হোসেন সাহেব নিজের বিবেক কে কত টাকায় বিক্রি করে দিলেন?

  • আধুনিক বাংলাদেশের ‘জনক’ শেখ হাসিনা

    আধুনিক বাংলাদেশের ‘জনক’ শেখ হাসিনা

  • একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জিতবে ১১ কারণে

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ জিতবে ১১ কারণে

  • বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা কোন প্রোটকলে নির্বাচন প্রচারণায় ??

    বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা কোন প্রোটকলে নির্বাচন প্রচারণায় ??

  • তারেক জিয়ার নতুন নির্বাচনী কৌশল

    তারেক জিয়ার নতুন নির্বাচনী কৌশল

যা বিএনপি পারেনি তা করছে ধর্মান্ধরা

প্রকাশ: ০৬ মার্চ ২০১৮     আপডেট: ০৬ মার্চ ২০১৮

আবদুল মালেক, উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস

যুদ্ধাপরাধ মামলায় যখন একের পর এক রায় হচ্ছিল, কার্যকর হচ্ছিল তখন সারাদেশে অস্থিরতা সৃষ্টি করেছিল জামায়াত। সেই আন্দোলনে লাজ-লজ্জা ছেড়ে সমর্থনও দিত বিএনপি, যদিও মুখে নিজেদের মুক্তিযোদ্ধার দল দাবি করে। কিন্তু বেগম জিয়ার সাজার পর জামায়াত আন্দোলনে নামেনি, এটি বিএনপির মনোবেদনার কারন হওয়া অস্বাভাবিক নয়। তাছাড়া বিএনপি বুঝতে পারছে সাংগঠনিক সক্ষমতা কতটা অন্তঃসারশূণ্য। বেগম জিয়ার জেল বিএনপির এ যাবৎ কালের সবচেয়ে বড় দুঃসময়, ক্রান্তিকালে পাশে নেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জোটসঙ্গী জামায়াত, এক সময় যাদের রাজনীতির অধিকার দিয়েছিল, গাড়িতে পতাকা দিয়েছিল, সে প্রতিদান এভাবে দিবে বিএনপি ভাবেনি। বেগম জিয়ার সাজাকে কেন্দ্র করে দেশ অচল করে দিবে জামায়াত এমন ধারনা ছিল বিএনপি। কিন্তু তা হয়নি, গনমাধ্যম একটি বিবৃতি পর্যন্ত দেয়নি জামায়াত। প্রকাশ্যে এ নিয়ে বাকবিতণ্ডা না হলেও পর্দার অন্তরালে নানা হিসাব-নিকাষ চলছে। জামায়াত-বিএনপির মধ্যে যে অভিমানের মেঘ জমেছে এটা স্বীকার করতেই হবে।


 রাস্তায় আন্দোলন-সংগ্রামের দল বিএনপি নয়। অধিকাংশ সামরিক শাসকের ক্ষেত্রে যা হয়, রাজনৈতিক দল গঠন করতে গেলে নানা শ্রেনী-পেশার লোভিরা সমবেত হয়। মেজর জিয়ার ক্ষেত্রেও তাই ঘটেছে। স্বাধীনতাবিরোধী ও অকারন আওয়ামী লীগ বিরোধীরা আশ্রয় পায় নবগঠিত দলে। এদের কারোরই ত্যাগের রাজনীতির অভ্যেস নেই, বরং সামরিক সরকারকে তোয়াজ করে জাগতিক ফায়দা হাসিলই মুখ্য উদ্দেশ্য। আর জামায়াতের ছিল ভিন্ন লক্ষ। বঙ্গবন্ধু এদের অনেককে কারারুদ্ধ করেছিলেন, জিয়াকে সমর্থনের মাধ্যমে নিজেদের অবম্থান মজবুত ও আওয়ামী লীগের উপর প্রতিশোধ নেয়া। সে লক্ষে তারা সফল। সাহেব ও বেগম জিয়ার মাধ্যমে ক্ষমতা ভোগ করেছে, যতটা সম্ভব পাকি ভাবধারায় নিয়ে গেছে দেশ, ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণ করেছে, সরল সহজ বাঙালীর মন ও মননে সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প উস্কে দিয়েছে। এসব করেছে নিজেদেরই স্বার্থে। তাতে মেজর জিয়া মারা যাক কিংবা বেগম জিয়া জেলে যাক তাতে এদের কিচ্ছু যায়-আসেনা। ফলে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে বিএনপির সেই ঠান্ডা আচরন ভিতরে ভিতরে ক্ষুব্ধ করেছে তাদের। কিন্তু পুরনো প্রেম বলে কথা, চাইলেই কি ভুলে থাকা যায়?


স্মরনকালের দুঃসময়ে  বিএনপি। দৃশ্যত পাশে নেই আদর্শিক ও পরীক্ষিত মিত্র জামায়াত। কিন্তু কথায় বলে প্রকৃতি শুন্যতা সহ্য করেনা। দেশে এখন একাধিক ধর্মান্ধ গুষ্ঠী সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিটি গুষ্ঠির ভাবগুরু প্রবীন সংগঠন জামায়াত। এরা শান্তির বাংলাদেশে অশান্তির বাতাবরণ তৈরী করেছে। বিভিন্ন সময়ে সংখ্যালঘু, অসাম্প্রদায়িক চেতনার লেখক, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, অধ্যাপক, ব্লগারদের নারকীয় কায়দায় খুন করে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে। এই দক্ষতা অর্জন করেছে তাদের আদর্শিক সংগঠন জামায়াতের কাছে থেকে। রগকাটা, গলাকাটা, হত্যা-রক্তপাত-ধর্ষনে দীর্ঘ ৪৭ বছরের অভিজ্ঞতা। মজার ব্যাপার হচ্ছে ধর্মান্ধ সংগঠনের কমন শত্রু আওয়ামী লীগ। যেহেতু আওয়ামী লীগ ভারতঘেষা, জঙ্গিরা ধরেই নিয়েছে আওয়ামী লীগ হিন্দুদের দল। এদের দ্বারা ইসলামের উপকার নয় বরং রসাতলে যাবে। উপমহাদেশে ইসলাম রক্ষা করবে  একমাত্র পাকিস্তান। এই ধারনা অনেক বিএনপি নেতারও। এই উদ্ভট ধারনা থেকেই ধর্মান্ধ জঙ্গিরা সরকার বিরোধি। আর এখানে সুকৌশলে সেই আগুন ঘি ঢালছে বিএনপি।


বেগম জিয়া ও নেতৃবৃন্দের ধারনা ছিল বেগম জিয়ার সাজা হতেই পারেনা। তিনবারের প্রধানমন্ত্রীকে কারারুদ্ধ করবে এমন জেল দেশে তৈরী হয়নি। জেল হলেও কারাগারে নিতে পারবে না, নেতা-কর্মীরা অচল করে দিবে দেশ, শেখ হাসিনা পালানোর পথ পাবে না। ভেবেছে, সাজা হলেও ২/১ দিনের বেশি কারাগারে রাখতে পারবে না। কিন্তু দেখতে দেখতে আজ ২৬ দিন, পরিত্যাক্ত ও বিশাল-ভৌতিক কারাগারে ফাতেমাসহ বন্দী বেগম জিয়া। আন্দোলন তো দুরের কথা রাজপথে সমন্বিত একটি মিছিলও হয়নি। কোনপ্রকার অস্থিরতা সৃষ্টি হয়নি, জনজীবন যারপরনাই স্বাভাবিক। কিন্তু এ তো চলতে দেয়া যায় না। দেশ অস্থিতিশীল করতে হবে। এ কাজে সহযোগিতা করতে এক পায়ে খাড়া মৌলবাদিরা। এতে দুই লাভ, একে তো ইসলাম রক্ষার পবিত্র দায়িত্ব পালন হবে, দ্বিতীয়ত, ইসলামের রক্ষাকরি পাকি দল বিএনপিকে ক্ষমতায় বসানোর পথ সুগম হবে। মুখে যা-ই বলুক তলতলে এই কাজে সাহায্যের হাত বাড়াতে পারে জামায়াতও। পুরনো কায়দায় হত্যাকান্ড শুরু মানেই বিএনপির এজেন্ডা বাস্তবায়নের লক্ষন।





আরও পড়ুন

ঐক্যফ্রন্টের তিনদিনের কর্মসূচি ঘোষণা

ঐক্যফ্রন্টের তিনদিনের কর্মসূচি ঘোষণা

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ও জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে তিন দিনের ...

বিবিসিকে 'নির্বাচনী ইশতেহার' নিয়ে যা বললেন রিজভী

বিবিসিকে 'নির্বাচনী ইশতেহার' নিয়ে যা বললেন রিজভী

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে বিএনপি নির্বাচনী ইশতেহারে তরুণদের ...

২৪ ঘন্টার মধ্যে সেনা মোতায়েন চেয়ে ইসিকে নোটিশ

২৪ ঘন্টার মধ্যে সেনা মোতায়েন চেয়ে ইসিকে নোটিশ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিচারিক ক্ষমতাসহ আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে ...

রব ও মান্নাকে ছাত্রলীগ-যুবলীগের ধাওয়া

রব ও মান্নাকে ছাত্রলীগ-যুবলীগের ধাওয়া

ঢাকা-১৮ আসনের ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল ...

ক্ষমতায় গেলে বেকার যুবকদের ভাতা দেয়া হবে: ফখরুল

ক্ষমতায় গেলে বেকার যুবকদের ভাতা দেয়া হবে: ফখরুল

ঠাকুরগাঁও-১ আসনের বিএনপির প্রার্থী ও দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম ...

১০ বছরে আওয়ামী লীগের উন্নয়ন

১০ বছরে আওয়ামী লীগের উন্নয়ন

একাদশ সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার (১৩ ডিসেম্বর) থেকে গণপ্রচারণায় ...

ডঃ কামাল হোসেন সাহেব নিজের বিবেক কে কত টাকায় বিক্রি করে দিলেন?

ডঃ কামাল হোসেন সাহেব নিজের বিবেক কে কত টাকায় বিক্রি করে দিলেন?

স্যার আপনি সিলেটে গিয়ে আহ্বান জানিয়েছেন আপনার নিজের হাতে তৈরি ...

জঙ্গলে ধ্যানরত বৌদ্ধ ভিক্ষুকে খেয়ে ফেললো বাঘ!

জঙ্গলে ধ্যানরত বৌদ্ধ ভিক্ষুকে খেয়ে ফেললো বাঘ!

জঙ্গলে ধ্যান করতে গিয়ে চিতাবাঘের কবলে পড়ে প্রাণ হারালেন এক ...