সম্পাদকীয়

  • মানুষের মাঝে বদলানোর মানসিকতা নেই

    মানুষের মাঝে বদলানোর মানসিকতা নেই

  • জিয়া পরিবার ধ্বংসে উল্লেখযোগ্য ১১টি আলৌকিক প্রভাব৷

    জিয়া পরিবার ধ্বংসে উল্লেখযোগ্য ১১টি আলৌকিক প্রভাব৷

  • "নীলকুঠি প্রসাদ ষড়যন্ত্র" মুক্তির আগে ফ্লপ--আওয়ামী জোটে খুশীর বন্যা

    "নীলকুঠি প্রসাদ ষড়যন্ত্র" মুক্তির আগে ফ্লপ--আওয়ামী জোটে খুশীর বন্যা

  • বুবু তুমি কেঁদো না

    বুবু তুমি কেঁদো না

  • বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও একটি ২৮ ইঞ্চি সাদাকালো টেলিভিশন

    বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ও একটি ২৮ ইঞ্চি সাদাকালো টেলিভিশন

নেত্রী কারাগারে, নেতারা ফাইভ স্টারে

প্রকাশ: ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

আবদুল মালেক, উপ-সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রেস

স্মরনকালের মধ্যে সবচেয়ে গভীর সংকটে বিএনপি। এর আগে বিভিন্ন সময়ে দুর্যোগের মুখোমুখি হলেও এবারের সংকট নানা কারনে ভিন্ন মাত্রার। ১৯৮১ সালে মেজর জিয়ার মৃত্যুতে প্রথম ধাক্কা খায় বিএনপি। অভ্যন্তরীণ সমস্যা থাকলেও সে যাত্রা সামলে নিতে পেরেছিল দ্বন্ধ। দ্বিতীয় ধাক্বা আসে ১/১১ তে, তখন দলটির অভ্যন্তরীণ সংকট প্রকট হয়, দলের মধ্যে ভাঙ্গনের চিত্র দৃশ্যমান হয়। সেটিও ক্রমে সামলে নিয়েছিল বিএনপি। কিন্তু এবার বোধকরি আর শেষরক্ষা হবে না। এর অন্যতম প্রধান কারন মূল নেতৃত্বের অদুরদর্শিতা।


জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় বেগম জিয়ার সাজা হতে পারে এমন খবর বাজারে চাউর ছিল গত প্রায় ছয় মাস ধরেই। অবশেষে গত ৮ ফেব্রুয়ারি সেই মামলায় বেগম জিয়ার পাঁচ বছর এবং তাঁর পুত্র ও অন্য আসামীদের প্রত্যেকের ১০ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড হয়। বিএনপি তথা বেগম জিয়া রায়ের সম্ভাব্য ফল আগেই অনুমান করেছিলেন, তাই তাঁর অবর্তমানে দল পরিচালনার জন্য তারেক রহমানকে নির্বাচন করা হয়। পরবর্তীতে দেখা গেল সেই মামলায় তারেকও দন্ডিত হলো। বিএনপিতে অনেক নামীদামী শিক্ষাবিদ, আইনজীবী ও অভিজ্ঞ সিনিয়র নেতা থাকতেও লন্ডন প্রবাসী ও দন্ডিত তারেক দলীয় প্রধান, এটি কতটা যৌক্তিক হয়েছে সে বিচারের ভার ভবিষ্যতে ছেড়ে দিয়ে বলা যায়, অনেক নেতারই এই সিদ্ধান্ত মনোপুত হয়নি। যদিও প্রকাশ্যে কেউ মুখ খুলছেন না, তবে আন্দোলনের গতি-প্রকৃতি দেখে সেটির কিছুটা হলেও আভাস মিলছে।


একটি কথা এখানে অপ্রাসঙ্গিক হবে না যে, অনেকেই ভেবেছিলেন, যত-যাই করুক, বেগম জিয়াকে জেলে পাঠানোর সাহস এ সরকার দেখাবে না। যদিও এই মামলা সরকার করেনি, কিংবা রায়ও সরকার দেয়নি। তবে আদালতের রায়ে বেগম জিয়ার কারাদণ্ড হয়ে যাবে সেটি অনেক বিএনপি নেতারও স্বপ্নসীমার বাইরে ছিল। শেখ হাসিনা যে অসম্ভব মেধাবী, সাহসী ও দুরদর্শী রাষ্ট্রনেতা সে প্রমান তিনি বারবার দিচ্ছেন। অত্যন্ত দুঃসময়ে রাজনীতিতে পথচলা, দৃঢ়তার সঙ্গে সে পথ অতিক্রম করেছেন। যুদ্ধাপরাধীর বিচার বাঙালীর মনোজগতের কামনা ছিল, তিনি তা করেছেন। দুঃসাহসী ভূমিকায় নেমেছেন পদ্মাসেতু নির্মানে। অর্থাৎ সততার সাথে এগুলে কোনকিছুই বাঁধা হয়না, শেখ হাসিনা এর উজ্বল দৃষ্টান্তও। বেগম জিয়া কারাগারে, মনে হয়েছিল বিএনপি দুনিয়া উল্টে দিবে, কিন্তু বাস্তবতা কি সে রকম কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছে?


বলছিলাম বিএনপির এবারের সংকটের কথা। যৌথ নেতৃত্ব বিএনপি ভাঙ্গনের একটি কারন হতে পারে। পরস্পরের প্রতি সন্দেহ-অবিশ্বাসও কম সৃষ্টি হয়নি। একে-অন্যকে সরকারের দালাল বলেও আখ্যা দিচ্ছে। আবার অনেক নেতার আওয়ামী লীগের নেতাদের সাথে সখ্যতা, আত্মীয়তা আছে। সেদিন এমনি এক আত্মীয়ের আমন্ত্রনে ঢাকার একটি ফাইভ স্টার হোটেলে গিয়েছিলেন ড. খন্দকার মোশারফ হোসেন। ফেরার পথে হোটেলের গেট পেরুতেই যুবদলের দুই নেতা তার দু'পাশে দাড়ালো। তিনি একটু হকচকিয়ে গেলেন, ভয় পেলেন। তখন একজন বললো, আমাদের প্রিয় নেত্রী জেলের ভাত খাচ্ছেন আর আপনি এসেছেন ফাইভ স্টারে ডিনার করতে? সরকারের গুম করতে হবে না, আমরাই আপনাকে গুম করবো। এ কথা বলে দ্রুত চলে গেল যুবদলের নেতারা। ড. মোশারফও তড়িঘড়ি স্থান ত্যাগ করেন। এতে বুঝা যাচ্ছে, বিএনপি থেকেও নজরদারি আছে, কে কোন দিকে যোগাযোগ রাখছে। এই অবিশ্বাস,  সন্দেহ এবং তারেকের ক্ষেপাটে নেতৃত্বের জন্যই ভাঙ্গবে বিএনপি, সে দিন খুব দুরে নয়।।



আরও পড়ুন

খাগড়াছড়িতে অবরোধ চলছে

খাগড়াছড়িতে অবরোধ চলছে

খাগড়াছড়িতে ব্রাশফায়ারে তিন ইউপিডিএফ নেতা ও সমর্থকসহ ছয়জন হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ...

প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের ঈদের কথা ভুলেনি , কেনা হচ্ছে ১০ হাজার কোরবানির পশু

প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গাদের ঈদের কথা ভুলেনি , কেনা হচ্ছে ১০ হাজার কোরবানির পশু

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ৩০টি আশ্রয়শিবিরের রোহিঙ্গাদের জন্য ১০ হাজার ...

কোরবানির পশুবাহী ট্রাকে বাধা দিলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি :পুলিশের মহাপরিদর্শক

কোরবানির পশুবাহী ট্রাকে বাধা দিলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি :পুলিশের মহাপরিদর্শক

ঈদুল আযহার বাকী আর মাত্র কদিন। এরই মধ্যে রাজধানীর হাটগুলোতে ...

শিক্ষার্থীদের ঈদের আগেই মুক্তির ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহন করতে বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী

শিক্ষার্থীদের ঈদের আগেই মুক্তির ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহন করতে বলেছিলেন প্রধানমন্ত্রী

সাম্প্রতি নিরাপদ সড়কের আন্দোলনে যেসব শিক্ষার্থী গ্রেফতার হয়েছিলো তাদেরকে ঈদের ...

স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নৃত্যগুরু বাদল না ফেরার দেশে

স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নৃত্যগুরু বাদল না ফেরার দেশে

দেশের প্রখ্যাত নৃত্যগুরু বজলুর রহমান বাদল। ‘স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত’ বরেণ্য এই ...

নগরি জুড়েই নির্বাচনী ঈদ শুভেচ্ছা : যত্রতত্র বাহারি এসব পোস্টার, ব্যানার অপসারণে নামছে চসিক

নগরি জুড়েই নির্বাচনী ঈদ শুভেচ্ছা : যত্রতত্র বাহারি এসব পোস্টার, ব্যানার অপসারণে নামছে চসিক

আসন্ন ঈদকে সামনে রেখে বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রাম জুড়ে নগরবাসিকে ঈদের ...

এক-এগারো নিয়ে আ’লীগের কুমতলব আছে: মির্জা ফখরুল

এক-এগারো নিয়ে আ’লীগের কুমতলব আছে: মির্জা ফখরুল

এক-এগারো নিয়ে আওয়ামী লীগের কোনো কুমতলব আছে বলে মন্তব্য করেছেন ...

২২ শিক্ষার্থীর মধ্যে ১৬ জনের জামিন

২২ শিক্ষার্থীর মধ্যে ১৬ জনের জামিন

পুলিশের ওপর হামলা ও ভাঙচুরের অভিযোগে দুই মামলায় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ...