শিক্ষাছুটিতে থাকা শিক্ষককে হয়রানির অভিযোগে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

প্রকাশ: ১৯ নভেম্বর ২০১৯

বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি ■ বাংলাদেশ প্রেস

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি ছুটিতে থাকা এক শিক্ষকের বেতন ভাতা বন্ধ করে দিয়েছে রেজিস্টার কর্তৃপক্ষ। এই ঘটনার প্রতিবাদে কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও মানুষিক হয়রানির অভিযোগ এনে মানববন্ধন করেছে আইন বিভাগসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা। 

আইন বিভাগের চূড়ান্ত বর্ষের শিক্ষার্থী ফাহিম বলেন, "কর্তৃপক্ষ কাগজপত্র হারিয়ে ফেলে স্যারকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করেছে। স্যারের বেতন ভাতা যেন পূণর্বহাল করা হয় এবং পরবর্তীতে যেন আর কোন শিক্ষকের সাথে এমন না হয়।"  দোহা বলেন,"স্যার এক বছর তিন মাস বেতন পেল,  আর এতদিন পর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কাগজ হারায়ে যায়, সেজন্য স্যারকে দায়ী করা হয়, এটা খুবই নিন্দনীয়।"  দেবব্রত পান্ডে বলেন,"রেজিস্টার স্যার নিজে তার ছুটির ব্যাপারে ওয়াকিবহাল ছিলেন। তারপরও হঠাৎ প্রশাসনের রদবদলের পরই স্যারকে হয়রানি করা হল কাদের নেপথ্যে, এর তদন্ত দাবী করছি।"  

এ ব্যাপারে রেজিস্টার নুরুদ্দিন বলেন, "কাগজপত্র নিয়ে একটু সমস্যা ছিল, এখন সমাধান হয়ে গেছে।"  বেতন-ভাতা বন্ধের আগে নোটিশ দেওয়া হয়েছিল কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে রেজিস্টার বলেন,"উনি তো দেশে ছিল না। আমরা কিভাবে যোগাযোগ করব?" এতদিন পর কেন -- এমন প্রশ্নোত্তরে তিনি বলেন, "আচ্ছা বুঝলাম! একটু সমস্যা ছিল! ওগুলো নিয়ে কথা বলার পরে উনি জানালো কাগজগুলি জমা দিয়েছেন, (কিন্ত আমাদের) ফাইলে ছিল না। পরে কাগজগুলি উনি আবার পাঠিয়েছেন।"

আইন বিভাগের ঐ শিক্ষকের নাম রুবাইয়াৎ রহমান। তিনি ২০১৮ সালের জুনে পাঁচ বছরের শিক্ষাছুটি নিয়ে বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস টেক বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি করছেন। বাংলাদেশ সময়ে গত ১৬ ই নভেম্বর সকালের দিকে ব্যক্তিগত ওয়েবসাইটে একটি আবেগঘন বার্তা দিয়ে তার সহকারী অধ্যাপক পদে যোগদান ও শিক্ষাছুটি সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র তুলে ধরেন। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তার পদন্নোতি নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করায় অপমানিত হয়েছেন বলে দাবি করেন। এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে।