রিফাত হত্যাঃ স্ত্রী মিন্নিকে নিয়ে গেছে পুলিশ

প্রকাশ: ১৬ জুলাই ২০১৯     আপডেট: ১৬ জুলাই ২০১৯

বরগুনা প্রতিনিধি ■ বাংলাদেশ প্রেস

বরগুনায় শাহনেওয়াজ রিফাত ওরফে রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির জবানবন্দি রেকর্ড ও তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ লাইনে নেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল পৌনে ১০টার  দিকে বরগুনা পৌর শহরের মাইঠা এলাকার মিন্নির বাবার বাড়ি থেকে তাকে পুলিশ লাইনে নেওয়া হয়।

মিন্নির বাবা মোজাম্মেল হোসেন কিশোর এ কথা জানান। তিনিও মিন্নির সঙ্গে পুলিশ লাইনে গেছেন।

মিন্নির বাবা বলেন, “আসামি শনাক্ত করার কথা বলে সকালে পুলিশের একটি দল মিন্নিকে পুলিশ লাইনে নিয়ে আসে।”

এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার (এসপি) মারুফ হোসেন বলেন, “মিন্নি রিফাত হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী। জবানবন্দি রেকর্ড করার জন্য মিন্নি ও তার পরিবারকে পুলিশ লাইনে আনা হয়েছে। পাশাপাশি আরও কিছু বিষয় জানার আছে।”

উল্লেখ্য বরগুনায় রিফাত শরীফবরগুনা প্রেসক্লাবে রিফাত শরীফের বাবা দুলাল শরীফ এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলেন রিফাত হত্যাকান্ডের সাথে তাঁর পূত্রবধূ মিন্নি জড়িত। সিসিটিভি ফুটেজে পুত্রবধু  মিন্নির গতিবিধি সন্দেহজনক বলে দাবি করে তিনি বলেন, রিফাতকে সন্ত্রাসীরা আক্রমনের প্রথম দিকে মিন্নির তৎপরতা ছিল স্বাভাবিক।

পরবর্তিতে সে নিবৃত্ত করতে চাইলেও বিষয়টি ছিল পরিকল্পিত। তিনি মিন্নিকে এ ঘটনার পরিকল্পনায় যুক্ত দাবি করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানান। সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেণ।

মিন্নি রিফাত হত্যা মামলার  ১নং স্বাক্ষি। এ মামলার বাদি। হত্যার ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্ত্রী মিন্নিকে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে নিয়ে গেছে পুলিশ।

এ সময় রিফাতের বাবা প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে বলেন, ইতোমধ্যে এসব নিয়ে একাধিক সংবাদ ও ভিডিও প্রকাশিত হয়েছে। আপনারা সবই অবগত আছেন। তাহলে কেন এখন পর্যন্ত মিন্নিকে গ্রেফতার করছে না পুলিশ। তাকে আইনের আওতায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করছে না কেন পুলিশ? আমার বিশ্বাস মিন্নিকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে আমার ছেলে হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত রহস্য বেরিয়ে আসবে। এ হত্যার পেছনে মিন্নির হাত আছে।

দুলাল শরীফ আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ প্রশাসনের সবার কাছে আমার আকুল আকুতি এ ন্যক্কারজনক হত্যাকাণ্ডের মূলহোতাকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে প্রকৃত রহস্য উন্মোচন করুন। আদালতের মাধ্যমে মিন্নির শাস্তি দাবি করছি আমি। তাকে যেন এমন কঠিন শাস্তি দেয়া হয় যাতে করে আর কোনো রিফাত শরীফের বাবা- মায়ের কোল খালি না হয়। এ সময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- নিহত রিফাত শরীফের চাচা আব্দুল আজিজ শরীফ ও ছালাম শরীফ। সংবাদ সম্মেলনের একপর্যায়ে কান্না শুরু করেন নিহত রিফাত শরীফের বাবা আব্দুল হালিম দুলাল শরীফ।