নুসরাতের সহপাঠি মনি ৫ দিনের রিমান্ডে

প্রকাশ: ১৭ এপ্রিল ২০১৯ |

নিজস্ব প্রতিনিধি ■ বাংলাদেশ প্রেস

ফেনীতে মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির কিলিং মিশনে অংশ নেওয়া কামরুন নাহার মনিকে পাঁচ দিনের রিমান্ড দিয়েছে আদালত।

বুধবার দুপুরে ফেনীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সরাফ উদ্দিন আহম্মেদ এ আদেশ দেন।

কোর্ট ইন্সপেক্টর গোলাম জিলানী জানান, সোনাগাজী ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী হত্যা মামলায় আটক মনিকে আদালতে তুলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) পরিদর্শক (ওসি) মো. শাহ আলম ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। আদালত পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত রোববার রাতে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসাইনের আদালতে নুসরাত হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেন মামলার অন্যতম আসামি নুর উদ্দিন ও শাহাদাত হোসেন শামিম।

তাদের জবানবন্দিতে জানা যায়, কামরুন নাহার মনি নুসরাত হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত বোরকা ও কেরোসিন সংগ্রহ করে কিলিং মিশনে অংশ নেয়।

এদিকে মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর এলাকা থেকে শরিফুল ইসলাম ওরফে শরিফ নামে আরও একজনকে আটক করেছে পিবিআই।

আলোচিত এ মামলা এখন পর্যন্ত ১৭ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ও পিবিআই। এদের মধ্যে মাদ্রাসা অধ্যক্ষ এসএম সিরাজ উদ দৌলা, কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাকসুদ আলম ও নুসরাতের সহপাঠীরা রয়েছেন। এদের মধ্যে মামলার এজহারভুক্ত আটজনের সাতজন রয়েছে।


প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ফেনীর সোনাগাজীতে স্থানীয় ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ (বর্তমানে বরখাস্ত) সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনেন ওই মাদ্রাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফি। এতে অধ্যক্ষের রোষানলে পড়েন তিনি।


গত ৬ এপ্রিল পরীক্ষার দিন সকালে ওই মাদ্রাসার সাইক্লোন শেল্টার ভবনের ছাদে নুসরাতকে ডেকে নিয়ে তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয় সিরাজ উদ দৌলার অনুসারীরা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পা২চ দিন চিকিৎসার পর গত ১০ এপ্রিল মারা যান নুসরাত।