• সেনাবাহিনী নামা নিয়ে সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবার

    সেনাবাহিনী নামা নিয়ে সিদ্ধান্ত বৃহস্পতিবার

  • মোহাম্মদপুরে পানির ট্যাঙ্কে পড়ে ২ শিশুর মৃত্যু

    মোহাম্মদপুরে পানির ট্যাঙ্কে পড়ে ২ শিশুর মৃত্যু

  • বেরোবির শীতকালীন ছুটি বৃদ্ধি

    বেরোবির শীতকালীন ছুটি বৃদ্ধি

  • মাওলানা ভাসানীর জন্মদিন আজ

    মাওলানা ভাসানীর জন্মদিন আজ

  • এবার ৫৪টি ওয়েবসাইট বন্ধের নির্দেশ

    এবার ৫৪টি ওয়েবসাইট বন্ধের নির্দেশ

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা

বাবর-পিন্টুসহ ২০ জনের ফাঁসি, তারেকসহ ১৭ জনের যাবজ্জীবন

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর ২০১৮     আপডেট: ১০ অক্টোবর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক, বাংলাদেশ প্রেস

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও শিক্ষা উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টুসহ ২০ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত।এছাড়া  বিএনপির সিনিয়র ভাইসচেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ ১৭ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত। 

উল্লেখ্য, হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দায়ের করা আলোচিত দুই মামলায় যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে ঢাকার এক নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক শাহেদ নূর উদ্দিন গত ১৮ সেপ্টেম্বর রায়ের এই দিন ঠিক করে দেন।

বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর ওই গ্রেনেড হামলার ঘটনা ছিল মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দেওয়া দল আওয়ামী লীগের ওপর সবচেয়ে বড় আঘাত।

আজকের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা সে সময় ছিলেন বিরোধী দলীয় নেতা। আর সেই সময়ের বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া এখন কারাগারে দুর্নীতি মামলার সাজা ভোগ করছেন। 

শুরু থেকেই নৃশংস ওই হত্যাযজ্ঞের তদন্ত ভিন্ন খাতে নিতে নানা চেষ্টা কওে বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকার। ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার এসে নতুন করে তদন্ত শুরু করে। বেরিয়ে আসে অনেক অজানা তথ্য। ২০০৮ সালের জুনে বিএনপি সরকারের উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, তাঁর ভাই তাজউদ্দিন, জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের (হুজি-বি) নেতা মুফতি হান্নানসহ ২২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি। তদন্তে বেরিয়ে আসে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ওই হামলা চালানো হয়েছিল। হামলায় ব্যবহৃত আর্জেস গ্রেনেড এসেছিল পাকিস্তান থেকে।

এ মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ২১ অগাস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে ওই হামলা চালানো হয়। হামলায় অংশ নেয় হরকাতুল জিহাদ আল ইসলামী বাংলাদেশের (হুজি) জঙ্গিরা। আর তার পেছনে ছিল তখনকার চারদলীয় জোট সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের ‘ইন্ধন’। হামলায় ব্যবহৃত আর্জেস গ্রেনেড আনা হয় পাকিস্তান থেকে।

আওয়ামী লীগের অভিযোগ, বিএনপি আমলে ওই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত ভিন্ন খাতে নিতে নানা চেষ্টা হয়। হামলার পরপরই নষ্ট করে ফেলা হয় আলামত।

পরে ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে নতুন করে তদন্ত শুরু হলে ‘প্রকৃত তথ্য’ বেরিয়ে আসতে থাকে। উদঘাটিত হয় ‘জজ মিয়া নাটক’। ৬১ জনের সাক্ষ্য নেওয়ার পর ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার এসে এর অধিকতর তদন্ত করে। এরপর বিএনপির নেতা তারেক রহমান, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, হারিছ চৌধুরী, জামায়াত নেতা আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদসহ ৩০ জনকে নতুন করে আসামি করে ২০১১ সালের ৩ জুলাই সম্পূরক অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি। এরপর দুই অভিযোগপত্রের মোট ৫২ আসামির মধ্যে তারেক রহমানসহ ১৮ জনকে পলাতক দেখিয়ে বিচার শুরু হয়। তারেক রহমানের বিরুদ্ধে কয়েকজন সাবেক সেনা কর্মকর্তা আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন, যাঁরা জোট সরকারের আমলে প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তর (ডিজিএফআই) ও র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখায় কর্মরত ছিলেন।

দুই মামলায় ১৭ বছরের সাজার রায় মাথায় নিয়ে তারেক রহমান আছেন যুক্তরাজ্যে দুই মামলায় ১৭ বছরের সাজার রায় মাথায় নিয়ে তারেক রহমান আছেন যুক্তরাজ্যে অন্যদিকে হামলায় জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে বিএনপি বলে আসছে, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য থেকে করা অধিকতর তদন্তে তাদের দলের জ্যেষ্ঠ ভাইস চেয়ারম্যান তারেককে এ মামলায় জড়ানো হয়েছে।

খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমান ছাড়াও বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, সাবেক উপমন্ত্রী আবদুস সালাম পিন্টু, তার ভাই হরকাতুল জিহাদের নেতা মাওলানা তাজউদ্দিন,খালেদা জিয়ার ভাগ্নে সাইফুল ইসলাম ডিউক এবং গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআই  ও পুলিশের শীর্ষ পদে থাকা বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা এ মামলার আসামি।

দুই মামলায় মোট ৫২ আসামির বিচার শুরু হলেও অন্য মামলায় তিনজনের ফাঁসি কার্যকর হওয়ায় মোট ৪৯ আসামির রায় হচ্ছে বুধবার।  হত্যা মামলায় তাদের সবার নাম থাকলেও বিস্ফোরক আইনের মামলায় তাদের মধ্যে ৩৮ জন আসামি।

আসামিদের মধ্যে ২৩ জন আগে থেকেই কারাগারে ছিলেন, যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে আদালত জামিনে থাকা আটজনকেও কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়। তারেক রহমানসহ বাকি ১৮ জনকে পলাতক দেখিয়েই এ মামলার বিচার কাজ চলে।

দণ্ডবিধি এবং বিস্ফোরক দ্রব্য আইনের যেসব ধারায় দুই মামলার বিচার হয়েছে, তাতে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তারেক রহমানসহ ৩৮ আসামির ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ মৃত্যুদণ্ড এবং ১১ সরকারি কর্মকর্তার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৭ বছরের কারাদণ্ডের রায় আসতে পারে।

১৮ সেপ্টেম্বর যুক্তিতর্কের শুনানির শেষ দিনে আসামিপক্ষ দাবি করে, প্রসিকিউশনের হাতে এমন কোনো প্রমাণ নেই যে ওই ঘটনায় এ আসামিরাই জড়িত ছিল। এর ভিত্তিতে আসামিদের খালাস দেওয়ার আর্জি জানান তাদের আইনজীবী।

অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে এ মামলার প্রধান কৌঁসুলী সৈয়দ রেজাউর রহমান বলেন, হামলার ঘটনায় আসামিদের সম্পৃক্ততার বিষয়টি সাক্ষীদের বক্তব্যেই উঠে এসেছে। এর ভিত্তিতে অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে দাবি করে তিনি আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি চান আদালতের কাছে। 

ঢাকার পুলিশ কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, এ রায় রাজধানীতে কোনো নিরাপত্তা হুমকি তারা দেখছেন না। তারপরও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সতর্ক অবস্থানে থাকবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও রায় ঘিরে সারাদেশে দলের নেতা-কর্মীদের সতর্ক অবস্থানে থাকার নির্দেশনা দিয়েছেন।

আর বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, রায় কী হয়, তা দেখার পর তারা কর্মসূচির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

বগুড়ায় মির্জা ফখরুলের পক্ষে প্রচারণা শুরু

বগুড়ায় মির্জা ফখরুলের পক্ষে প্রচারণা শুরু

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পক্ষে বগুড়া-৬ (সদর) আসনে ...

চার নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থাকে চায় না আওয়ামী লীগ

চার নির্বাচন পর্যবেক্ষক সংস্থাকে চায় না আওয়ামী লীগ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে চার দেশীয় পর্যবেক্ষক সংস্থার নিবন্ধন ...

ভোট দিয়ে সরকার পতন করবে জনগণ : মির্জা ফখরুল

ভোট দিয়ে সরকার পতন করবে জনগণ : মির্জা ফখরুল

আওয়ামী লীগ ভোট চুরি করার চেষ্টা করতে পারে, তাই সকলকে ...

‘ফখরুলের গাড়িবহরে হামলা মনোনয়ন বাণিজ্যের বহিঃপ্রকাশ’

‘ফখরুলের গাড়িবহরে হামলা মনোনয়ন বাণিজ্যের বহিঃপ্রকাশ’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়ি বহরে হামলার ঘটনা মনোনয়ন বাণিজ্যের ...

নৌকার বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না : নাসিম

নৌকার বিজয় কেউ ঠেকাতে পারবে না : নাসিম

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, এবারের নির্বাচনে নৌকার বিজয় কেউ ঠেকাতে ...

ময়মনসিংহ-৭; মাদানীকে সমর্থন দিলেন রওশন এরশাদ

ময়মনসিংহ-৭; মাদানীকে সমর্থন দিলেন রওশন এরশাদ

ময়মনসিংহ-৭ (ত্রিশাল) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রুহুল আমীন মাদানীকে সমর্থন ...

দেশের ১৮ কোটি মানুষকে সোচ্চার হতে হবে: ড. কামাল

দেশের ১৮ কোটি মানুষকে সোচ্চার হতে হবে: ড. কামাল

দেশের মালিকানা জনগণের কাছে ফিরিয়ে আনতে ঐক্যফ্রন্টকে বিজয়ী করতে হবে ...

‘সরকার বদলের অস্থিরতা থাকলে উন্নয়ন হয় না’

‘সরকার বদলের অস্থিরতা থাকলে উন্নয়ন হয় না’

সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন,‘ধর্মের নামে মানুষকে বিভ্রান্ত করা একজন ধার্মিকের ...