• ছয় মাসেও ফেরেনি রোহিঙ্গারা

    ছয় মাসেও ফেরেনি রোহিঙ্গারা

  • চাকরি স্থায়ী চান এনআইডির ৩২ কর্মকর্তা

    চাকরি স্থায়ী চান এনআইডির ৩২ কর্মকর্তা

  • অবহেলিত ভাষা সৈনিক বসাক

    অবহেলিত ভাষা সৈনিক বসাক

  • ইংরেজি সাইনবোর্ড অপসারণ অভিযানে ডেইজি সারোয়ার; লাখ টাকা জরিমানা

    ইংরেজি সাইনবোর্ড অপসারণ অভিযানে ডেইজি সারোয়ার; লাখ টাকা জরিমানা

  • “বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ঝুঁকিরোধে পুরকৌশলীদের এগিয়ে আসতে হবে”-চুয়েট ভিসি

    “বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ঝুঁকিরোধে পুরকৌশলীদের এগিয়ে আসতে হবে”-চুয়েট ভিসি

প্রশ্ন ফাঁসের সমাধান কোন পথে

প্রকাশ: ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮     আপডেট: ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮

বাংলাদেশ প্রেস ডেস্ক

কোচিং সেন্টার সাময়িকভাবে বন্ধ, ফেইসবুক বন্ধের পদক্ষেপ, ইন্টারনেটের গতি ধীর করার পদক্ষেপ, কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে স্মার্টফোন নিয়ে ধরা পড়লে গ্রেপ্তার, কমিটি গঠন এবং দায়ীদের ধরিয়ে দিতে পারলে ৫ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণার মতো উদ্যোগ নেওয়ার পরও বন্ধ হচ্ছে না প্রশ্ন ফাঁস। মঙ্গলবারও পদার্থবিজ্ঞান ও ফিন্যান্সের প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে। এ অবস্থায় স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠছে, প্রশ্ন ফাঁস রোধের শেষ কোথায়। এ অবস্থায় বিজি প্রেসে প্রশ্ন না ছাপিয়ে বিকল্প উপায়ে ছাপানোর পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষাবিদরা।


প্রশ্ন ফাঁসে ক্ষুব্ধ অনেকেই শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের পদত্যাগ চাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষাবিদরা বলছেন, মন্ত্রীর পদত্যাগ প্রশ্ন ফাঁসের সমাধান নয়। আবার শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে এমসিকিউ পদ্ধতি তুলে দেওয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন। প্রশ্ন ফাঁসের বিষয়ে কোনো সুরাহা করতে না পারায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ফেইসবুক বন্ধ করার পক্ষে মত দিয়েছিলেন। যদিও নানা বাস্তবতায় শিক্ষামন্ত্রীর ফেইসবুক বন্ধের পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করা যায়নি।


ইন্টারনেটের গতি ধীর করার পদক্ষেপও বাস্তবায়ন করা যায়নি। ৫ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণার পরও প্রশ্ন ফাঁসের চক্রকে পাকড়াও করা যায়নি। বিচ্ছিন্নভাবে পুলিশ নানাজনকে গ্রেপ্তার করছে। কিন্তু প্রশ্ন ফাঁস ঠেকানো যাচ্ছে না। প্রশ্ন ফাঁস রোধে একটি কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রী বলেছিলেন, কমিটি যদি প্রমাণ পায় প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে, তাহলে পরীক্ষা বাতিল করা হবে। প্রশ্ন ফাঁসের প্রমাণ পাওয়ার বিষয়ে এখনও কমিটির কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।


এ ব্যাপারে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) কম্পিউটার প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ বলেছেন, প্রশ্ন ফাঁস রোধে একটি সমাধানের পথ আছে, কিন্তু এতে সমস্যাও আছে। পরীক্ষার প্রশ্ন আগে না ছাপিয়ে পরীক্ষার আগ মুহূর্তে কেন্দ্রে ছাপাতে হবে। ওই কক্ষটিকে আমরা বলি, স্ট্রংরুম। ওই কক্ষে বাইরের কাউকে ঢুকতে দেওয়া হবে না, আর কাউকে বাইরেও যেতে দেওয়া হবে না। তারা কোনো রকম যোগাযোগ রাখতে পারবেন না। কক্ষটি সিসি ক্যামেরার আওতায় থাকবে।


কতক্ষণ আগে প্রশ্ন ছাপাতে হবে, এরজন্য কী কী লাগবে- এ বিষয়গুলো পরীক্ষা পদ্ধতির সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের মাধ্যমে ঠিক করা যেতে পারে। কোনো ধরনের মোবাইল ফোন বা ডিভাইস রাখা যাবে না ওই কক্ষে। রাখলেও তার মাধ্যমে যেন যোগাযোগ করা না যায়, সে ব্যবস্থা করে দিতে হবে।


সিলেট ব্যুরো জানায়, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেছেন, প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে তিনি শহীদ মিনারে বৃষ্টিতে ভিজে আন্দোলন করেছেন, তখন প্রশ্ন ফাঁসের কথা স্বীকারও করা হয়নি। এখন স্বীকার করা হচ্ছে। কিন্তু কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। কীভাবে প্রশ্ন ফাঁস রোধ করা যায়, সে বিষয়ে ভাবতে হবে, দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। যারা প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িত, তাদের শাস্তি দিতে হবে।


প্রয়োজনে বিজি প্রেসে প্রশ্ন না ছাপিয়ে বিকল্প উপায়ে প্রশ্ন ছাপানোর ব্যবস্থা নেওয়ার পরামর্শ দেন বিশিষ্ট এ শিক্ষাবিদ। তিনি বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ প্রশ্নপত্র ফাঁসের সঠিক সমাধান নয়। প্রশ্ন ফাঁসের মূল কারণ উদ্ঘাটন করে এর সমাধান করাটাই সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন। মঙ্গলবার সকালে সিলেটের মিরের ময়দানে বিশ্ব বেতার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ইন্টারনেট বন্ধ করে প্রশ্ন ফাঁস বন্ধ করা সম্ভব নয়।


সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষাবিষয়ক উপদেষ্টা এবং গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধূরী বলেন, প্রশ্ন ফাঁস বন্ধ করার দায়িত্ব সরকারের। প্রযুক্তিবিদের সহায়তায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর ও দৃঢ় পদক্ষেপে এটা বন্ধ করা সম্ভব। কিন্তু তারা অপরাধীকে ধরছে না কেন? তক্কে তক্কে থাকা অপরাধীরা সুযোগ পায় কীভাবে? কঠিন সত্য হচ্ছে, প্রশ্ন ফাঁস হয়।


সেটা ৩০ মিনিট আগেই হোক, আর এক ঘণ্টা আগে হোক। আর এ কারণে পরীক্ষার প্রতি অভিভাবকদের অনাস্থা তৈরি হয়েছে। অনেককেই বলতে শুনেছি, পরীক্ষা দেওয়ায় লাভ কী? তিনি বলেন, প্রশ্ন ফাঁসের জন্য শিক্ষক-অভিভাবককে দোষারোপ করা হচ্ছে। অভিভাবককে বলা হচ্ছে, আপনারা প্রশ্নের পেছনে ছুটবেন না। এমন সস্তা কথা বলাই যায়। কিন্তু যেখানে প্রশ্ন ফাঁস হচ্ছে, সেখানে অভিভাবকের প্রশ্নের পেছনে ছোটাই স্বাভাবিক।


সরকারকে এমন কথা না বলে দায়িত্ব নিয়ে প্রশ্ন ফাঁস বন্ধ করতে হবে। অপরাধীকে ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। সেটা ভালো। কিন্তু যাদের এরই মধ্যে ধরা হয়েছে, তাদের কী শাস্তি হয়েছে? এভাবে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে কত দিন চলা যায়? প্রশ্ন ফাঁস বন্ধে সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে।


পদার্থবিজ্ঞান ও ফিন্যান্সের প্রশ্নপত্রও ফাঁস! : মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়েছে পদার্থবিজ্ঞান, ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং এবং বাংলাদেশ ও বিশ্বসভ্যতা বিষয়ের পরীক্ষা। এর মধ্যে পরীক্ষা শুরুর আগেই হোয়াটসঅ্যাপে পদার্থবিজ্ঞান, ফিন্যান্স ও ব্যাংকিংয়ের প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগ পাওয়া গেছে; যা পরীক্ষার প্রশ্নের সঙ্গে হুবহু মিল রয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৮টা ৫৮ মিনিটে পদার্থবিজ্ঞানের বহুনির্বাচনি অভীক্ষার ‘গ’ সেটের প্রশ্ন উত্তরপত্রসহ হোয়াটসঅ্যাপে পাওয়া গেছে।


এরপর তা অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। আর পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ পরই সকাল ১০টা ৫ মিনিটে ফিন্যান্স ও ব্যাংকিংয়ের ‘ঘ’ সেটের প্রশ্নপত্রও পাওয়া যায় হোয়াটসঅ্যাপে । এ নিয়ে এখন পর্যন্ত অনুষ্ঠিত ৯টি বিষয়ের প্রশ্নই ফাঁসের অভিযোগ পাওয়া গেল।


প্রশ্ন ফাঁসে রেকর্ড : চলমান এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা এবং বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষায় সাম্প্রতিক সময়ে প্রশ্ন ফাঁসের ব্যাপক অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি এসব ঘটনাকে রেকর্ড হিসেবে অভিহিত করছেন ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা।


১ ফেব্রুয়ারি বাংলা প্রথম পত্রের বহুনির্বাচনি অভীক্ষার ‘খ’ সেট পরীক্ষার প্রশ্ন ও ফেইসবুকে ফাঁস হওয়া প্রশ্নের হুবহু মিল ছিল। পরীক্ষা শুরুর এক ঘণ্টা আগেই তা ফেইসবুকে পাওয়া যায়। ৩ ফেব্রুয়ারি সকালে পরীক্ষা শুরুর প্রায় ঘণ্টাখানেক আগে বাংলা দ্বিতীয় পত্রের নৈর্ব্যক্তিক (বহুনির্বাচনি) অভীক্ষার ‘খ’ সেটের উত্তরসহ প্রশ্নপত্র পাওয়া যায় ফেইসবুকে। যার সঙ্গে অনুষ্ঠিত হওয়া প্রশ্নপত্রের হুবহু মিল পাওয়া যায়।


৫ ফেব্রুয়ারি পরীক্ষা শুরুর অন্তত দুই ঘণ্টা আগে সকাল ৮টা ৪ মিনিটে ইংরেজি প্রথম পত্রের ‘ক’ সেটের প্রশ্ন ফাঁস হয়। যার সঙ্গে অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের হুবহু মিল পাওয়া গেছে। ৭ ফেব্রুয়ারি বুধবার পরীক্ষা শুরুর অন্তত ৪৮ মিনিট আগে সকাল ৯টা ১২ মিনিটে ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের ‘খ’ সেটের গাঁদা প্রশ্নপত্রটি হোয়াটসঅ্যাপের একটি গ্রুপে পাওয়া গেছে। অনুষ্ঠিত হওয়া প্রশ্নপত্রের সঙ্গে যা হুবহু মিলে গেছে।


৮ ফেব্রুয়ারি হোয়াটসঅ্যাপের একটি গ্রুপে ইসলাম ও নৈতিক শিক্ষার বহুনির্বাচনি অভীক্ষার ‘খ’ সেটের চাঁপা প্রশ্নপত্রটি পাওয়া যায়। এটিও অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের সঙ্গে হুবহু মিলে গেছে। ১০ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা ৫৯ মিনিটে হোয়াটসঅ্যাপের একটি গ্রুপে গণিতের ‘খ-চাঁপা’ সেটের প্রশ্নপত্রটি পাওয়া যায়, যা অনুষ্ঠিত পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের সঙ্গে হুবহু মিলে যায়। 


এছাড়া আইসিটি বিষয়ের প্রশ্নপত্র রোববার সকাল ৮টা ৫১ মিনিটে হোয়াটসঅ্যাপের একটি গ্রুপে ‘ক সেট’ প্রশ্ন পাওয়া যায়। আর সকাল ৯টা ৩ মিনিটে গ সেটের প্রশ্নও ফাঁস হয়। 

এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্নপত্রও ফাঁস হওয়ার অভিযোগ ওঠে।


সিআইডি গেল বছরের ১৪ ডিসেম্বর এক সংবাদ সম্মেলনে অভিযুক্ত দুজনকে সাংবাদিকদের সামনে হাজিরও করেছিল। এমনকি বরগুনায় দ্বিতীয় শ্রেণির প্রশ্নও ফাঁস হয়েছিল ১৪০টি স্কুলে। এ ঘটনায় পরীক্ষাও স্থগিত করা হয় ওইসব স্কুলে। গেল বছর ৬ অক্টোবর সিনিয়র স্টাফ নার্স পরীক্ষার প্রশ্নও ফাঁস হয়ে যায় বলে অভিযোগ ওঠে।


প্রশ্ন ফাঁসকারী হোতাদের ধরে ফেলব-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী : একের পর এক এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িত মূল হোতাদের শিগগিরই ধরে ফেলা (গ্রেপ্তার) হবে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তবে এজন্য সবাইকে একটু অপেক্ষা করারও আহ্বান জানান তিনি। মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী একথা বলেন


প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িত হোতারা কেন গ্রেপ্তার হচ্ছে না এমন প্রশ্ন করা হলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, একটু অপেক্ষা করেন। যারা এ ধরনের (প্রশ্ন) ফাঁস করেন, কিংবা চেষ্টা করেন সেই চক্রকে আমরা ধরে ফেলব। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের পরামর্শ নিয়ে যারা প্রশ্ন ফাঁস করছে তাদের ধরে ফেলব।


রাজধানীতে প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী চক্রের এক সদস্য গ্রেপ্তার : রাজধানীর আগারগাঁওয়ের তালতলা বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে মঙ্গলবার এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী চক্রের একজন সক্রিয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গ্রেপ্তারকৃতের নাম সাব্বির আহম্মেদ। ঢাকার সাভারে বসবাস করলেও তার গ্রামের বাড়ি বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জের সোনাখালীতে।


র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-২ এর একটি দল তালতলা এলাকায় আভিযান চালিয়ে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী চক্রের সদস্য সাব্বিরকে গ্রেপ্তার করে।


চট্টগ্রামে পরীক্ষার ১ ঘণ্টা আগে বাসভর্তি শিক্ষার্থীর হাতে প্রশ্ন : চট্টগ্রাম ব্যুরো ও পটিয়া সংবাদদাতা জানান, নগরীর কোতোয়ালি থানা এলাকার বাংলাদেশ মহিলা সমিতি (বাওয়া) উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রের পাশের রাস্তায় দাঁড়ানো পরীক্ষার্থী বাসে ফাঁস হওয়া এসএসসির পদার্থ বিজ্ঞানের প্রশ্নপত্র-উত্তরপত্র মুঠোফোনে দেখার সময় শিক্ষকসহ ৯ শিক্ষার্থীকে আটক ও ২৪ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে পরীক্ষা শুরুর ১ ঘণ্টা আগে এ ঘটনা ঘটে।


এ বিষয়ে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মোরাদ আলী বলেন, এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের মাত্র ১ ঘণ্টা আগে কেন্দ্রের পাশের সড়কের ওপর দাঁড়ানো শ্যামলী পরিবহনের একটি বাসে ৫০ পরীক্ষার্থী মিলে প্রতিদিন মুঠোফোনে কি দেখেন। বিষয়টি তার নজরে আসে।


মঙ্গলবার সকালে বাওয়া স্কুলকেন্দ্রে পদার্থবিজ্ঞান বিষয়ে পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য পটিয়া আইডিয়াল স্কুলের ৫৬ পরীক্ষার্থীকে নিয়ে শ্যামলী পরিবহণের একটি বাস নগরীর জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদের পাশে এসে থামে।


পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে এক শিক্ষিকাও ছিলেন। বাসটির ভেতরে সাত থেকে আটজন পরীক্ষার্থী মুঠোফেনের হোয়াটসঅ্যাপে আসা পদার্থবিজ্ঞানের ‘খ’ সেটের প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্র দেখছিলেন। বিষয়টি নিশ্চিত হলে সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ সদস্যদের নিয়ে বাসে অভিযান চালান। এ সময় আটটি স্মার্টফোন উদ্ধার করা হয়। 


এ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান বলেন, পটিয়া আইডিয়াল স্কুলের একটি বাসে পরীক্ষা শুরুর ১ ঘণ্টা আগে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে পদার্থবিজ্ঞানের প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্র পেয়ে যায় স্মার্টফোনে। তাদের চিহ্নিত করার পর মানবিক দিক বিবেচনা করে পরীক্ষাকেন্দ্রে ঢুকতে দেওয়া হয়েছে।


পরীক্ষা শেষে জড়িতদের মধ্যে এক শিক্ষিকসহ ৯ জনকে আটক করা হয়েছে। ২৪ জনকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এদিকে চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার হেঁয়াকো বনানী উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রে পাশের মসজিদের সামনে থেকে পদার্থবিজ্ঞান পরীক্ষা শুরুর আধা ঘণ্টা আগে ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্রসহ সাত শিক্ষার্থীকে আটক করেছে পুলিশ। 


কেন্দ্রের প্রধান ফটকে মোবাইল ফোন ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা মানছেন না নরসিংদীর অভিভাবকরা : নরসিংদী সংবাদদাতা জানান, নরসিংদীর মাধবদীতে দেখা গেছে এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন ২০০ মিটার নয়, কেন্দ্রের মূল ফটকেই মোবাইল ব্যবহার করছেন অভিভাবকরা।


মঙ্গলবার সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, এসএসসি ও সমমান পরীক্ষাকেন্দ্র মাধবদী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রবেশপথে অভিভাবকরা মোবাইলে কথপোকথন করছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তেমন কোনো নজরদারিও ছিল না শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটিতে। একই শহরের পরীক্ষাকেন্দ্র মাধবদী এসপি ইনস্টিটিউশনের আশপাশে স্মার্টফোন ব্যবহার করতেও দেখা যায়।


ভালুকায় প্রশ্নপত্র ও মোবাইলসহ চারজন আটক : ভালুকা (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা জানান, ভালুকায় মঙ্গলবার সকালে উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়ন সোনার বাংলা উচ্চবিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষাকেন্দ্রের বাইরে মোবাইল ফোনে পদার্থবিজ্ঞান ‘ক’ ও ‘খ’ সেট প্রশ্ন ও উত্তরপত্রসহ চারজন আটক হয়েছে। আটককৃতরা কেন্দ্রের বাইরে ঘোরাফেরা করার সময় সন্দেহ হলে মোবাইল সেটে প্রশ্নপত্রসহ তাদের আটক করা হয়।


মাদারীপুরে প্রশ্ন ফাঁসকারীর একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর : মাদারীপুর সংবাদদাতা জানান, ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্ন ফাঁসকারী জোবায়দুল ইসলামের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলায় মঙ্গলবার একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। 


কুমিল্লায় প্রশ্ন ফাঁস সিন্ডিকেটের সদস্যের ২ বছরের কারাদণ্ড : কুমিল্লা সংবাদদাতা জানান, কুমিল্লার মুরাদনগরে এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস করার অভিযোগে খাইরুল ইসলাম নামের প্রশ্ন ফাঁস সিন্ডিকেটের এক সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।


মঙ্গলবার পদার্থবিজ্ঞান পরীক্ষা শুরু হওয়ার আধা ঘণ্টা আগে দুটি মোবাইলের মধ্যে থাকা পরীক্ষার প্রশ্ন ও উত্তরপত্রসহ তাকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাকে দুই বছরের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। দন্ডপ্রাপ্ত খাইরুল ইসলাম উপজেলার কামাল্লা ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের তরিকুল ইসলামের ছেলে।


আরও পড়ুন

দিনাজপুরে বেড়েছে চালের দাম

দিনাজপুরে বেড়েছে চালের দাম

পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকার পরও ধানের জেলা দিনাজপুরে চালের দাম বাড়ছে।দিনাজপুরের ...

শেষ ষোলতে বরুশিয়া, আর্সেনাল

শেষ ষোলতে বরুশিয়া, আর্সেনাল

ইউরোপা লিগের শেষ ষোলতে জায়গা করে নিয়েছে বরুশিয়া ডর্টমুন্ড, আর্সেনাল; ...

চাকরি স্থায়ী চান এনআইডির ৩২ কর্মকর্তা

চাকরি স্থায়ী চান এনআইডির ৩২ কর্মকর্তা

২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় 'ছবিসহ ভোটার তালিকা ...

অবহেলিত ভাষা সৈনিক বসাক

অবহেলিত ভাষা সৈনিক বসাক

ভাষা আন্দোলনের ৬৫ বছর পেরিয়ে গেলেও জয়পুরহাটের ভাষা সৈনিক সুমন্ত ...

রুটি কারিগর যখন ট্রুডো পরিবার!

রুটি কারিগর যখন ট্রুডো পরিবার!

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বরাবরই মজার সব কাণ্ডকারখানা ঘটিয়ে খবরের ...

ইউনিসেফের উপপ্রধানের পদত্যাগ

ইউনিসেফের উপপ্রধানের পদত্যাগ

জাতিসংঘের শিশু বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফের উপপ্রধান জাস্টিন ফরসিথ পদত্যাগ করেছেন। ...

আর কত দিন ভাঙা রেকর্ড || মুহম্মদ জাফর ইকবাল

আর কত দিন ভাঙা রেকর্ড || মুহম্মদ জাফর ইকবাল

আজকে আমার একজন সহকর্মী তার স্মার্টফোনে আমাকে একটা ভিডিও দেখিয়েছে। ...

শাকিব-অপুর তালাক কার্যকরে সিদ্ধান্ত ১২ মার্চ

শাকিব-অপুর তালাক কার্যকরে সিদ্ধান্ত ১২ মার্চ

চলচ্চিত্র তারকা দম্পতি শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের বিচ্ছেদ কার্যকর ...